তুলা চাষ বিভিন্নভাবে চাষিদের আর্থসামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে-কৃষিমন্ত্রী

এগ্রিলাইফ ফোকাস:তুলা চাষ বিভিন্নভাবে চাষিদের আর্থসামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। বর্তমান হাইব্রিড সিব প্রবতর্নের মাধ্যমে চাষি পর্যায়ে তুলা চাষের ব্যপক সাড়া পড়েছে। যদিও আমারা তুলা রপ্তানিকারক দেশ। দেশে বর্তমানে আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে আনার জন্য উপকূলিয় অঞ্চলে এমন কি রবি মৗসুমে আমন ধান কাটার পরে তুলা চাষ করা হয়।

মঙ্গলবার (৩০এপ্রিল) কৃষিমন্ত্রী ড.মো.আব্দুর রাজ্জাক এমপি’র সাথে মন্ত্রণালয় তার অফিস কক্ষে Deputy Assistant U.S Trade Representative for south and central Asian Affair (DAUSTR) Zeba Reyazuddin (জেবা রেয়াজউদ্দীন) এর নেতৃত্বে এক প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাতকালে এসব কথা বলেন কৃষিমন্ত্রী ।

উল্লেখ্য; মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা আমাদের যেমন প্রয়োজন তেমনি ভূ-রাজনৈতিক কারণে তাদের এ সম্পর্কে উন্নত রাখতে হবে। বাংলাদেশের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক ১৯৪৯ সাল থেকে। এ সম্পর্কে কখনও উষ্ণতার ছোঁয়া পেয়েছে, আবার কখনও শীতল হয়েছে। বাংলাদেশের বৃহত্তম রপ্তানি বাজার হলো যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশের প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগকারী রাষ্ট্রও যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান কৌশলগত সামরিক মিত্র যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ বিশ্বের বৃহত্তম অবদানকারী রাষ্ট্র। বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের অংশগ্রহণের অন্যতম সমর্থক যুক্তরাষ্ট্র। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পরের বছর বার্নিকাট বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হয়ে এসে মিডিয়ার সামনেই বলেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্ক অংশীদারিনির্ভর।

মন্ত্রি বলেন; যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের জোরদার অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে। যার অন্যতম প্রধান মাধ্যম হচ্ছে কৃষি। বাংলাদেশ ও আমেরিকার সম্পর্কের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক। আর এই দুইয়ের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কৃষি। বাংলাদেশের প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগকারী রাষ্ট্রও যুক্তরাষ্ট্র। প্রতিনিধিবৃন্দ বলে আমেরিকা অনকে উন্নত মানের তুলা উৎপন্ন করে। সম্প্রতি কৃষিতে বাংলাদেশের সাফ্যলে তারা উচ্ছসিত এবং বাংলাদেশের কৃষির উন্নয়নে পাশে থাকতে চায়।

আশাকরি, যুক্তরাষ্ট্রের সাথে এ বন্ধন হবে অত্যন্ত সৌহার্দপূর্ণ ও ভ্রাতৃত্বসুলভ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বহুমাত্রিকভাবে বাংলাদেশকে সাহায্য সহযোগিতা করতে পারে। আমাদের কৃষি ক্ষেত্রে প্রয়োজন আধুনিক ও বাণিজ্যিক কৃষি এ ক্ষেত্রে প্রয়োজন বিনিয়োগ, খাদ্য প্রক্রিয়াযাত, রপ্তানী ও মুল্য সংযোজন আশা করি এক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পক্ষে এগিয়ে আসবে বলে মনে করেন কৃষিমন্ত্রী।  

প্রতিনিধিদলে আরও ছিলেন Erland Herfindahi  (এরল্যান্ড হরফিন্দাহী,), Deputi Assistant U.S Trade Representative for the Generalized Syastem of Preference (GSP); Silpi jha (শিল্পি ঝা) U.S Patent and Trademark office Legal Counsel for Intellectual Property-South Asia; Anrdew Hochhalter (এন্ড্রু হোকাল্টার), U.S Department of Agriculture; Sean Moffatt (শন মফফাত,), Bangladesh desk,U.S Department of state; Dr.Murali Bandla (ড.মুরলি বন্দালা), Animal and Plant Health Inspection Service (APHIS) Asian Regional Manager,U.S;

U.S Embassy থেকে jim Town (জিম টাউন), Economic Officer U.S.Ambassay Dhaka;; WIlliam E Moeller (উইলিয়াম ই মোলেলার),Counsellor of Political and Economic Affairs; Mark Myers(মার্ক মায়ার্স),Agricultural Attache U.S Embassay Dhaka.

escort izmir