আমের গুটি ঝরা ও এর প্রতিকার

কৃষিবিদ মো. আবু সায়েম:বৃদ্ধির বিভিন্ন পর্যায়ে আম ঝরে পড়া প্রকৃতির নিয়মেরই অংশ বিশেষ। এসময় বাড়তি যত্ন বিশেষ করে সেচ, পোকামাকড় ও রোগ দমনে সচেতন হলে ১৫-২০ শতাংশ পর্যন্ত আমের ফলন বাড়ানো সম্ভব। মুকুলে প্রধানতঃ উভলিঙ্গ ফুলের অনুপাত বেশি হওয়া দরকার কারণ এগুলিই পরাগায়িত হয়ে ফল ধারণ করতে সক্ষম। প্রাথমিক পর্যায়ে ফল ঝরার কারণসমূহ হচ্ছে পরাগায়ন না হওয়া, অপুষ্ট গর্ভমুন্ড, ত্রুটিযুক্ত ফুল, কোন কোন জাতে স্ব-অসংগতিতা এবং বাড়ন্ত ফলের পরষ্পরের মধ্যে প্রতিযোগিতা। এছাড়া আমের শুকনা ক্ষত বা এ্যানথ্র্র্রাকনোজ ও পাউডারী মিলডিউ রোগের আক্রমণ, হপার বা ফুতকি পোকা ও মিলিবাগ বা দধে পোকার আক্রমণ, দীর্র্ঘ সময় অনাবৃষ্টি, হরমোনের অসামঞ্জস্যতা, জাতগত বৈশিষ্ট্য ইত্যাদি কারণে আম ঝরে যায়।

প্রতিকারঃ ফল বৃদ্ধির সময়ে নিয়মিত সেচ দেওয়া। প্রতি মুকুলে আমের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য ফুল ফোটার ১০ ও ২০ দিন পর দু’বার দশ লিটার পানিতে ৬ গ্রাম হারে বোরিক এসিড স্প্রে করলে ভাল ফল পাওয়া যাবে। সমস্ত ফুল ফোটা অবস্থায় জিবরেলিক এসিড প্রতি লিটার পানিতে ৫০ মিলিগ্রাম হারে স্প্রে করলে আমের গুটি ঝরা কমানো যায়। আমের রোগ ও পোকার আক্রমণ থেকে আমের গুটি রক্ষা করতে গুটির আকার মটর দানার মত হলে একটি কীটনাশক (রিপকর্ড/সিমবুস/ক্যারেটে এক লিটার পানিতে ১ মিলি. হারে) ও একটি ছত্রাকনাশক (ডায়থেন এম ৪৫/ইনডোফিল এম ৪৫ এক লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে) একত্রে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। এছাড়াও আমের গুটি মটর দানার আকার হলে প্রতি লিটার পানিতে ২০ গ্রাম ইউরিয়া সার মিশিয়ে স্প্রে করলে গুটি ঝরা কমানো যায়।

-লেখক:পিএইচডি গবেষক (এনএটিপি), কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ, হাবিপ্রবি, দিনাজপুর ও অতিরিক্ত উপপরিচালক (এলআর), ডিএই, খামারবাড়ি, ঢাকা।

escort beylikduzu izmir escort corum surucu kursu malatya reklam