সুস্থ্যভাবে বেঁচে থাকার জন্য নির্মল বায়ুর বিকল্প নেই

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম ডেস্ক:নির্মল বায়ুর প্রয়োজনীয়তা এবং পরিবেশ রক্ষনাবেক্ষণের স্বার্থে নির্মল বায়ু কিভাবে রক্ষা করা যায় এ সম্পর্কে হাতে কলমে জানতে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বনায়ন ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের বি.এসসি. এজি. (অনার্স) লেভেল ৪ সেমিষ্টার ১ এর শিক্ষার্থীরা গতকাল পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন “ক্লিন এয়ার এন্ড সাসটেইনএবল এনভায়রনমেন্ট (কেস)” প্রকল্পের আওতায় সিলেট শহরে স্থাপিত “ নির্মল বায়ু পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (ক্যামস)” পরিদর্শন করেন।

উক্ত সফরে কৃষি বনায়ন ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান সহযোগী প্রফেসর মোঃ সামিউল আহসান তালুকদার এর তত্ত্বাবধানে ৬০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এসময় পরিবেশ অধিদপ্তরের সিনিয়র কেমিস্ট ও ক্যামস এর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম নির্মল বায়ু পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের কার্যক্রম সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন এবং ধনোনঞ্জয় ক্রাইটেরিয়া পলুট্যান্ট এনালাইসিসের পদ্ধতি এবং বায়ুর মান পরিমাপের যন্ত্রপাতিগুলো সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের ধারনা দেন।

এসময় ছাত্র-ছাত্রীরা নির্মল বায়ু কিভাবে রক্ষা করা যায় সে সম্পর্কে ধারণা লাভ করেন। শিক্ষার্থীরা পার্টিকুলেট মেটার (পি.এম. ১০ ও পি.এম. ২.৫) এনালাইজার, ফ্লুরেসসেন্স (Flurescence) সালফার-ডাই-অক্রাইড (SO2) এনালাইজার, কেমিলুমিনেসসেন্স (Chemiluminescence) নক্স (NO-NO2-NOx) এনালাইজার, ফটোমেট্রিক (Photometric) ওজোন এনালাইজার, কার্বন মনোঅক্রাইড (CO) এনালাইজারসহ সংশ্লিষ্ট মেটেরিওলোজিক্যাল যন্ত্রপাতি সম্পর্কে বাস্তব অভিজ্ঞতা লাভ করে।

কৃষি বনায়ন ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান মোঃ সামিউল আহসান তালুকদার বলেন, সিলেটের নির্মল বায়ু পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র পরিদর্শনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা বায়ু দূষণের প্রধান প্রধান নিয়ামকসমূহের পরিমাপ পদ্ধতি সম্পর্কে খুবই মূল্যবান অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে।

escort izmir