ফার্মিং ডেস্ক:চলতি খরিফ-১/২০১৮-১৯ মৌসুমে প্রনোদনা কর্মসূচীর আওতায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামুল্যে গ্রীষ্মকালীন মুগ ও তিলের বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরণ করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ১১.০০ টায় পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলা কৃষি অফিসের আয়োজনে উপজেলা কৃষি অফিস চত্বরে পাঁচশত কৃষকের মাঝে এসব প্রণোদনা বিতরণ করা হয়।

মো.মুশফিকুর রহমান:পাতা পেঁয়াজ বাংলাদেশের একটি অপ্রচলিত মসলা ফসল। অপ্রচলিত হলেও স্বাদে, গন্ধে, গুণে এর জুড়ি মেলা ভার। পেঁয়াজের বিকল্প হিসেবেও এর ব্যবহার বহুল সমাদৃত। পাতা পেঁয়াজের ইংরেজী নাম “Bunching Onion”। পাতা পেঁয়াজ ও পেঁয়াজ দু’টিই“ Alliaceae” পরিবারের দুই সদস্য। পাতা পেঁয়াজের বৈজ্ঞানিক নাম “Allium fistulosum”, অপরদিকে পেঁয়াজের বৈজ্ঞানিক নাম“Allium cepa”।

পাতা পেঁয়াজের পাতা ও ফুল দেখতে সাধারণ পেঁয়াজের মতই। কিন্তু পাতা পেঁয়াজে সাধারণ পেঁয়াজের মত বাল্ব হয় না। বাল্বের পরিবর্তে সেখানে একটি Balanced Pseudostem (ব্যালান্সড সিডো স্টেম) উৎপন্ন হয়। Balanced Pseudostem (ব্যালান্সড সিডো স্টেম) সহ সমগ্র পাতা খাওয়া যায়। পাতা পেঁয়াজ একবার লাগালে সেখান থেকে পুনরায় আবার জন্মায়। একে র‌্যাটুনিং ফসল বলে। একটি গাছ থেকে নভম্বের পর্যন্ত ৩-৪ বার পাতা সংগ্রহ করে খাওয়া যায়। জানুয়ারী থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত পাতা পেঁয়াজের বীজ বপন করতে হয়। বাড়ির আঙ্গিনার এক কোণে কিছু পাতা পেঁয়াজের গাছ লাগালে সারা বছর সেখান থেকে ফলন পাওয়া যায়। তাপমাত্রা কমে গেলে (নভেম্বর- ডিসেম্বর মাসে) পাতা পেঁয়াজে ফুল আসে ও বীজ হয়। বীজ এবং কুঁশি দুইটির মাধ্যমেই পাতা পেঁয়াজের বংশবিস্তার হয়। পাতা পেঁয়াজে  তেমন কোনো রোগ বা পোকা-মাকড়ের আক্রমন হয়না।

বিভিন্ন খাদ্য দ্রব্যকে রুচিকর, সুগন্ধপূর্ণ করার মাধ্যমে প্রানবন্ত করে তোলার জন্য পাতা পেঁয়াজের পাতা মিশানো হয়। বিভিন্ন প্রকার সুপের স্বাদ বৃদ্ধি করতে ও সালাদ তৈরী করতেও এটি ব্যবহৃত হয়। মূল বাদে গাছের সমস্ত  অংশ সালাদ  বা তরকারীর সাথে রান্না করে খাওয়া হয়।

স্বাদকারক হিসেবে ব্যবহার ছাড়াও পাতা পেঁয়াজের অনেক ঔষুধী গুণ আছে। পাতা পেঁয়াজে খুব শক্তিশালী এন্টি অক্সিডেন্ট আছে। যা দেহের ক্ষতিগ্রস্ত কোষ গঠনে সহায়তা করে। পাতা পেঁয়াজের পাতা হাঁপানী রোগের জন্য বিশেষ উপকারী। এছাড়াও পাতা পেঁয়াজে “এলাইল প্রোপাইল ডাই সালফাইড” আছে, যা তীব্র ঘ্রাণের সৃষ্টি করে এবং “থাইওপ্রোপানাল এস-অক্সাইড” আছে, যা চোখে পানি তৈরী করে।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এর মসলা গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানী ড. মো. আলাউদ্দিনখান, পাতা পেঁয়াজ নিযে দীর্ঘদিন গবেষণা করেছেন। তার প্রচেষ্টায় ২০১৩ সালে “বারিপাতা পেঁয়াজ-১” নামে একটি জাত বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) কর্তৃক অবমুক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় পাতা পেঁয়াজের চাষ হচ্ছে। ফরিদপুরের বাহিরদিয়াতে অবস্থিত  মসলা গবেষণা  উপ-কেন্দ্র এর বিজ্ঞানীরা পাতা পেঁয়াজসহ অন্যান্য মসলা ফসলের জাত উন্নয়ন নিয়ে নিরলস গবেষণা করে যাচ্ছে।

-লেখক:-বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, মসলা গবেষণা উপ-কেন্দ্র, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাহিরদিয়া, ফরিদপুর
ই-মেইল: This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পাবনা এর উদ্যোগে সোমবার (৪ মার্চ) দিনব্যাপী পাবনা জেলার নয়টি উপজেলায়্ একযোগে উৎসবমুখর পরিবেশে পার্চিং বা ডালপোতা উৎসব করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, চাটমোহর প্রতিটি ব্লকে এই উৎসবের আয়োজন করে। প্রতিটি মৌসুমেই ধান ফসলে এই নতুন প্রযুক্তি মাঠ পর্যায়ে সম্প্রসারণ ও কৃষকদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে পালন করা হয়।

এগ্রিলাইফ:ইউএসএআইডি (USAID)-এর অর্থায়নে, সিমিট-বাংলাদেশ, আইডিই ও কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর এর যৌথ সহযোগীতায় এবং স্থানীয় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা সোসাইটি ডেভেলপমেন্ট কমিটি (এসডিসি) এর উদ্যোগে রাজবাড়ী সদর উপজেলার ধুলদি-জয়পুর গ্রামে বুধবার (৬ মার্চ) বীজ বপন/সিডার মেশিনের মাধ্যমে লাইনে ফসল উৎপাদনের উপর কৃষক মাঠ দিবসের আয়োজন করা হয়।

ফার্মিং ডেস্ক:বাংলাদেশ দক্ষিন এশিয়ার খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ন একটি দেশ। দানাদার খাদ্য হিসাবে গমের অবস্থান ধানের পরেই। সমীক্ষায় দেখা যায় আমাদের বাৎসরিক গমের চাহিদা প্রায় ৭০ লক্ষ টন। বাৎসরিক ধানের যোগান দেশজ উৎপাদনের মাধ্যমে পুরাপুরি পূরণ হলেও গমের চাহিদার নিজস্ব উৎপাদন প্রায় একষষ্ঠাংশ মাত্র। বিগত ২০১৬ সালে বাংলাদেশের দক্ষিন এবং দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের কিছু এলাকায় গম ফসলে মহামারী হিসাবে ব্লাস্ট রোগ দেখা দেওয়ায় গমের উৎপাদনে আরও ঘাটতি তৈরী হয়।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, সিরাজগঞ্জ সদর এর আয়োজনে ৩ মার্চ ২০১৯ সকাল ১১.০০ টায় কৃষক পর্যায়ে উন্নতমানের ডাল, তেল ও মসলা বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরন প্রকল্প (৩য় পর্যায়) এর আওতায় এসএমইর সরিষা প্রদর্শনীর উপর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

antalya bayan escort bursa bayan escort adana bayan escort mersin bayan escort mugla bayan escort samsun bayan escort konya bayan escort