ঢেঁড়শের শিকড় গিট (Root knot) রোগ দমনে করণীয়

বিজ্ঞানী ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান: ভালো ফলন পেতে হলে কৃষক ভাইদের রোগ-বালাই সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে। এগ্রিলাইফের পাঠকদের জন্য আজ থাকছে ঢেঁড়শের শিকড় গিট (Root knot) রোগ দমনের বিস্তারিত। মেলোয়ডোগাইন (Meloidogyne spp.) প্রজাতির কৃমির আক্রমনে এ রোগ হয়ে থাকে।

রোগের বিস্তার:
মেলোয়ডোজাইন প্রজাতির কৃমি মাটিতে বসবাস করে। আক্রান্ত মাটি, শিকড়ের অংশ, বৃষ্টি ও সেচের পানি এবং কৃষি যন্ত্রপাতির দ্বারা এ রোগ বিস্তার লাভ করে। সাধারণত ২৭-৩০ ডিগ্রী সেঃ তাপমাত্রা, হালকা মাটি ও একই জমিতে বৎসরের পর বৎসর ঢেঁড়শ চাষ করলে এ রোগ দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

রোগের লক্ষন:

  • চারা অবস্থায় কৃমি দ্বারা আক্রান্ত হলে গাছের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয় এবং গাছ খর্বাকৃতির হয়
  • পাতা হলুদাভ সবুজ বা হলুদ রং ধারন করে ও পাতা ঝড়ে পড়ে
  • গাছে ফুল ও ফলের সংখ্যা অস্বাভাবিক ভাবে কমে যায়
  • আক্রান্ত গাছের মূলে ও মূলরোমে অসংখ্য গিট দেখা যায়
  • এ গিটগুলো দেখতে সাদাটে রং-এর হয়।

প্রতিকার:

  • ফসল সংগ্রহের পর অবশিষ্টাংশ পুড়ে ফেলতে হবে
  • শুষ্ক মৌসুমে জমি পতিত রেখে ২/৩ বার চাষ দিয়ে মাটি ভালভাবে শুকাতে হবে; এতে কৃমি মরে যায়
  • গম, ভুট্টা, বাদাম, সরিষা ইত্যাদি দ্বারা শস্য পর্যায় অবলম্বন করতে হবে
  • জমি প্লাবিত করে রাখলে এ রোগের কৃমি মারা যায়, তাই সুযোগ থাকলে বছরে একবার প্লাবিত করে রাখতে হবে
  • হেক্টর প্রতি ৫ টন অর্ধ পচা মুরগীর বিষ্ঠা জমিতে প্রয়োগ করতে হবে। প্রয়োগের ২-৩ সপ্তাহ পর জমিতে বীজ বপন করতে হবে
  • রোগের লক্ষণ দেখা গেলে হেক্টর প্রতি ৪০ কেজি কার্বোফুরান গ্রুপের কীটনাশক অথবা ইসাজোফস গ্রুপের কীটনাশক মাটিতে ছিটিয়ে ভালভাবে মিশিয়ে দিয়ে হালকা সেচ দিতে হবে।

=========================
লেখক:প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব)
মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই, শিবগঞ্জ, বগুড়া।
মোবাইলঃ ০১৯১১-৭৬২৯৭৮
ইমেইলঃThis email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

antalya bayan escort bursa bayan escort adana bayan escort mersin bayan escort mugla bayan escort samsun bayan escort konya bayan escort