ঢাকায় `Buffalo development for safe food production & sustainable development` শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

রাজধানী প্রতিবেদক:গরুর দুধের চেয়ে মহিষের দুধ ও মাংস যেমন সুস্বাদু তেমনি এতে কোলেস্টেরলও অনেক কম। তাই ব্যাপকভাবে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মহিষের উৎপাদন করে দেশের মানুষের আমিষের চাহিদা পূরণ করছে অন্যান্য দেশ। অথচ বাংলাদেশে মহিষের সংখ্যা কমছে। দেশে দুধের বাজারের মাত্র ৪ শতাংশ আসে মহিষ থেকে। যেখানে ভারতের বাজারের ৫৬ শতাংশ এবং নেপাল ও পাকিস্তানে এ হার যথাক্রমে ৭০ ও ৬৩ শতাংশ। তাই ২য় বৃহত্তম দুধ উৎপাদনকারী প্রাণিজ সম্পদ মহিষকে অবহেলিত রেখে পুষ্টি ও তরল দুধের ঘাটতি পূরণ সম্ভব নয়।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) রাজধানীর কেআইবি মিলনায়তনে আয়োজিত "Buffalo Development for the Production of Safe Food & Sustainable Development"-শীর্ষক সেমিনারে এসব তথ্য জানানো হয়।

সকাল ১০.৩০ ঘটিকায় রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আশরাফ আলী খান খসরু এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব মোঃ রইছউল আলম মন্ডল এবং সম্মানিত অতিরিক্ত সচিব জনাব কাজী ওয়াছি উদ্দিন।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মহিষ উন্নয়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ডা. মোঃ রফিকুল ইসলাম। এছাড়া প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড: নাথুরাম সরকার, সেনাবাহিনীর কর্নেল আব্দুল বাকী, প্রাণিসম্পদ সংশ্লিষ্ট বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য রাখেন।

ডা. মোঃ ওসমান গনি শিশির এবং ডা. সাদিয়া আফরিন-এর সঞ্চালনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাকৃবি’র এনিমাল ব্রিডিং এন্ড জেনিটিক্স বিভাগের প্রফেসর ড. ওমর ফারুক এবং প্রবন্ধের ওপর আলোচনা করেন পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) জিএম ড. শরীফ আহমেদ চৌধুরী ও কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম সম্প্রসারণ প্রকল্পের পরিচালক বেলাল হোসেন।

সেমিনারের মাঝে উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর বার্ষিক প্রতিবেদন (২০১৭-১৮) এর মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান অতিথি।

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে উদ্যোক্তা, কৃষক, খামারী ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাসহ ৪০০ জন অংশগ্রহনকারী এই সেমিনারে অংশগ্রহন করেন।

সেমিনারে আগত সুধীজনরা বলেন জাতির অপুষ্টির অন্যতম প্রধান কারন তরল দুধের অভাব।কাজেই অপুষ্টির শিকার মানুষকে প্রচুর পরিমাণে তরল দুধ খাওয়াতে হবে। এজন্য উন্নত জাতের মহিষের বাণিজ্যিক ডেয়রী খামার প্রতিষ্ঠার দিকে গুরুত্ব দেওয়া ছাড়া তরল দুধের ঘাটতি ও পু্ষ্টির চাহিদা পূরণ কোন অবস্হাতেই সম্ভব নয়। একটি সৃজনশীল, মেধাবী, কর্মঠ জাতি গঠন বা আগামী প্রজন্ম বিনির্মাণে পু্ষ্টির কথা বিশেষ বিচেনায় আনা প্রয়োজন।

antalya bayan escort bursa bayan escort adana bayan escort mersin bayan escort mugla bayan escort samsun bayan escort konya bayan escort