অনন্য এক সন্ধ্যা উপভোগ করলো শেকৃবি'র ৪৪তম ব্যাচের সহপাঠীরা

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:মুন্সির ক্যান্টিন থেকে লাইব্রেরি, পড়ার টেবিল থেকে খেলার মাঠ, সংসদ ভবনের দক্ষিন চত্ত্বর থেকে ধেয়ে আসা দখিনা বাতাসে রঙীলা মন, সারা ক্যাম্পাসে দাপিয়ে বেড়ানো দুরন্ত মনগুলো ১০ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার অনন্য এক সন্ধ্যা উপভোগ করলো কেআইবি চত্ত্বরে। বলছিলাম শেকৃবি ৪৪ তম ব্যাচের সহপাঠীদের এক গেট টুগেদারের কথা। আনন্দ, আড্ডা ও আলাপচারিতায় বন্ধুদের অনুভূতিগুলো ফিরে গিয়েছিল প্রায় ৩০ বছরের পূর্বের বিশ্ববিদ্যালয়ের দিনগুলোতে। দীর্ঘদিন পরে তারা একে অপরকে দেখতে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়ে। আর স্মৃতিচারণ করে পুরনো দিনের কথা। এদের মধ্যে এমনও বন্ধু আছে যারা দীর্ঘ ২৮ বছর পরে একত্রিত হয়েছে।

কানাডা প্রবাসী সাবেরা সুলতানা সেতু বলেন, খুবই ভাল লাগছে কত স্মৃতি কত কথা সবই যেন চোখের সামনে। মৃত্তিকা বিজ্ঞানী মাহবুবুর রহমান মিন্টু বলেন, এক কথায় দারুন, ২০ বছর পর দেখা আবার কবে হবে জানি না। বিশিষ্ট ব্যাংকার কামাল উদ্দিন কুতুবী বলেন, মনে হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় চত্তরে ফিরে গেছি। একই ভাবে আড্ডা, গল্প করা।

মহাপরিচালক সামরিক ভূমি ও ক্যান্টনমেন্ট অধিদপ্তর, ফরিদ আহমেদ বলেন, ২৬ বছর আগের জীবনে ফিরে গেছি। এইচ এম এম তারিক হোসেন, প্রফেসর কৃষিতত্ত্ব বিভাগ, তিনি বলেন, হারিয়ে ফেলা বন্ধুদের ফিরে পেলাম আজকের এই মিলন মেলায়। উদ্যানতত্ত্ববিদ লিপিকা মজুমদার তুলি বলেন, অসাধারণ অনুভুতি, একযুগ পর বন্ধুদের দেখতে পেলাম। নাটার ড. এম এ মাজেদ, বলেন, ২৮ বছর পর বন্ধু ফারুকের সাথে দেখা। মনে হচ্ছে প্রথম ক্লাশের আনন্দ অনুভূতিটি ছিল লুৎফর রহমান মোল্লার। আমেরিকান প্রবাসী ওমর ফারুক বলেন স্বল্প সময়ের অনুভূতি যেন সারা জীবরেনরই আনন্দের। এই বন্ধনগুলি অটুট থাক এটিই কামনা তার। নষ্টালজিক হয়ে গেলাম বললেন ড. নাজমুল আমিন মজুমদার তামান্না।

৪৪ তম ব্যাচের সাধারণ সম্পাদক শরীফ মোঃ তসলিম রেজা বলেন তাদের ব্যাচের পাশকৃত সর্বোচ্চ সংখ্যক বন্ধুদের নিয়ে আমেরিকা প্রবাসী তারেক, ফারুক ও অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী জামির এবং কানাডা প্রবাসী সেতুর আগমন উপলক্ষে গেট টুগেদারটি অনুষ্ঠিত হয়।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রানালয়ের যুগ্ম সচিব, উপসচিব, কৃষি মন্ত্রনালয়ের ডিএই এর উপপরিচালক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, অন্যান্য সরকারী বেসরকারি অফিসের উর্ধতন কর্মকর্তা বন্ধুদের এই গেট টুগেদারে কেআইবির মহাসচিব এবং শেকৃবি ৪৩ তম ব্যাচের অগ্রজ কৃষিবিদ জনাব খায়রুল আলম প্রিন্সের যোগ দেয়ায় আরও প্রানবন্ত হয়ে উঠে।

escort beylikduzu izmir escort corum surucu kursu malatya reklam