ক্যালেন্ডারের নির্ধারিত ছুটি পাননি শিক্ষার্থীরা

আবুল বাশার মিরাজ, বাকৃবি:বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার দিনে ক্লাস ছুটি থাকবে। এমন নোটিশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যালেন্ডারেই দেওয়া রয়েছে। কিন্তু এ ছুটির দিনেও দিব্যি ক্লাস করতে হয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) শিক্ষার্থীদের। আর এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা। আর এটির জন্য দূর্বল প্রশাসনিক সিদ্ধান্তকেই দায়ী করছেন তারা।

জানা গেছে, গত শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছিল। রবিবার পুরষ্কার বিতরণের মাধ্যমে তা শেষ হয়। শিক্ষার্থীরা ক্লাসে থাকার কারণে স্টেডিয়ামে দর্শকশূন্যতা ছিল। এ নিয়ে শিক্ষক সমিতির সদ্য বিদায়ী সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস মাহফুজুল বারি ফেসবুকে দর্শকশুন্য মাঠের বেশ কিছু ছবি পোস্ট করে লেখেন, ‘আজ ছিল বাকৃবির বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। সেখানে নেই কোন শিক্ষার্থী, নেই কোন প্রভোস্ট, নেই কোন হাউজ টিউটর। ওনারা সব কোথায়? এই প্রোগাম কাদের? এই প্রোগামে গিয়ে আমি পুরাই হতাশ। দর্শক বিহীন এই প্রোগাম বড্ড মর্যাদাহীন।’

ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিযোগিতার দিনও চলেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়টি অনুষদের ক্লাস। এতে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার বিভিন্ন ইভেন্ট উপভোগ করতে পারেননি শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে ইভেন্টে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের ক্লাস বাদ দিয়ে থাকতে হয়েছে মাঠে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই দিন ব্যাপী বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়টি অনুষদের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ইভেন্টে অংশগ্রহণ করেন। আর এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যালেন্ডারে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার দিন ছুটি হিসেবে উল্লেখ রয়েছে। বিগত বছরগুলোতে ওই দুই দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্লাস ছুটি থাকলেও এবছর ছয়টি অনুষদেই ক্লাস চলেছে।

এদিকে ক্যালেন্ডারে ছুটি জেনে অনেক শিক্ষার্থী বাসায় গিয়ে বিপাকে পড়েছেন। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বছরে একবারই অনুষ্ঠিত হয়। এই দিনেও আমাদের ক্লাস চলেছে। আমাদের সবাইকে যেখানে আজকে মাঠে থাকার কথা ছিল, সেখানে আমরা ক্লাস করছি। ছুটি পেয়ে আমাদের অনেক শিক্ষার্থী বাসায় চলে যাওয়ায় তারা আজকে ক্লাসে উপস্থিত হতে পারেননি। বাকৃবির অদক্ষ প্রশাসন আসলে আমাদের সাথে একরকম মশকরা করল এবার। ’

শিক্ষার্থীদের জন্য নির্ধারিত ক্যালেন্ডারের ক্লাস ছুটি এবছর কেন দেওয়া হল না? এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন কাউন্সিলের আহবায়ক অধ্যাপক ড. গিয়াস উদ্দিন আহমদ বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধের নোটিশ দেয়া হলে ক্লাস বন্ধ থাকবে, না দেওয়া হলে ক্লাস বন্ধ থাকবে না। এখানে আমার বলার কিছুই নেই।’ ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো. ছোলায়মান আলী ফকির বলেন, ‘বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উপলক্ষে রবিবার ছুটি না থাকলেও সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস ছুটি থাকবে।’

escort izmir