সিকৃবি ছাত্র ওয়াসিমের লাশ কবর থেকে উত্তোলনের আদেশ

রায়হানুল নবী, সিকৃবি: সিলেট কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয়ের ছাত্র ঘোরী মোঃ ওয়াসিম আব্বাসের লাশ কবর থেকে উত্তোলনের আদেশ দিয়েছেন মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত মূখ্য বিচারিক হাকিম মোঃ বাহাউদ্দিন কাজী। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ঘোরী মোঃ ওয়াসিম আব্বাসের লাশ ময়নাতদন্ত না করেই দাফন করে তাঁর পরিবার। সুষ্ট তদন্ত ও ন্যায় বিচারের স্বার্থে লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের জন্য আদালত এ নির্দেশ দেন।

ময়নাতদন্তের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য হবিগঞ্জ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন। ময়নাতদন্ত শেষে সমস্ত কাজের সমন্বয় করে আদালতকে অবহিত করতেও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই গিয়াস উদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সোহেল আহম্মদ জানান, ৫ দিনের রিমান্ড শেষে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হত্যার বিষয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন উদার পরিবহনের বাস চালক জুয়েল আহমদ, হেলপার মাসুক মিয়া।

গত ২৫ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় কুন্ডু বাদী হয়ে মৌলভীবাজার মডেল থানায় উদার পরিবহনের চালক জুয়েল, হেলপার মাসুক ও সুপার ভাইজার সেফুল মিয়াকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা। এ ঘটনায় চালক ও হেল্পার  গ্রেপ্তার হলেও বাসের সুপার ভাইজার এখনও পলাতক রয়েছেন।

ওয়াসিম হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার রুদ্র গ্রামের মোঃ আবু জাহেদ মাহবুব ও ডাঃ মীনা পারভিনের একমাত্র পুত্র। নিহতের পরই এ ঘটনায় মামলা দায়েরে অনাগ্রহ প্রকাশ করে ওয়াসিমের পরিবার। ময়নাতদন্ত ছাড়াই কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে লাশ দাফন করে পরিবার।

প্রসঙ্গত, গত  গত ২৩ মার্চ  শনিবার সন্ধ্যার দিকে সিকৃবি শিক্ষার্থী ওয়াসিম আফনানকে ঢাকা-সিলেট রোডের শেরপুর এলাকায় ভাড়া নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে উদার পরিবহনের একটি বাস থেকে ফেলে দেয় বাসটির হেলপার। ঘটনাস্থলেই বাসের চাকার নিচে পিষ্ট হয়ে ওয়াসিমের মৃত্যু হয়।

escort izmir