রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

ক্যাম্পাস ডেস্ক:রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বুধবার ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন করা হয়। এই উপলক্ষে সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয় র‌্যালি। র‌্যালিটি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে যায়। সেখানে উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান এবং উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা ও উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়াসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী’র সঞ্চালনায় সেখানে উপাচার্য মুজিবনগর দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তৃতা করেন।

এদিন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের উদ্যোগে সকাল ১০:৩০ মিনিটে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এতে প্রধান আলোচক ছিলেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর হারুন-অর রশিদ। সেখানে আলোচক ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান, উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা ও উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর চিত্তরঞ্জন মিশ্র। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহ্বায়ক প্রফেসর এম মজিবুর রহমান।

সভায় আলোচকগণ বলেন, ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ গ্রহণ করে ও এদিন স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র অনুমোদন করা হয়। সেদিন থেকে দিনটি মুজিবনগর দিবস নামে পরিচিতি লাভ করে। মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা, বিশ্ব দরবারে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের পক্ষে জনমত সৃষ্টি, শরনার্থীদের ব্যবস্থাপনা, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশবাসীর পাশে দাঁড়ানোসহ মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকার পরিচালনায় এ সরকার সার্বিক দায়িত্ব পালন করে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দিকনির্দেশনা অনুসরণ করে মুজিবনগর সরকারের যোগ্য নেতৃত্ব ও রণকৌশল মুক্তিযুদ্ধকে সফল পরিসমাপ্তির দিকে নিয়ে যায় যা বিশ্বে বিরল।

স্বাধীনতা বাঙালি জাতির সর্বকালের শ্রেষ্ঠ অর্জন। স্বাধীনতা সংগ্রামের গৌরবময় ইতিহাস তরুণ প্রজন্মের নিকট তুলে ধরা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। দেশের তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানার পাশাপাশি দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে জাতি গঠনমূলক কাজে অবদান রাখবে-ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে এই হোক প্রত্যয়।

সভায় অন্যদের মধ্যে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক প্রফেসর প্রভাষ কুমার কর্মকার, প্রক্টর প্রফেসর মো. লুৎফর রহমানসহ শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর মো. আব্দুর রশিদ সরকার।

antalya bayan escort bursa bayan escort adana bayan escort mersin bayan escort mugla bayan escort samsun bayan escort konya bayan escort