রোহিঙ্গা নিয়ে কাজের অভিজ্ঞতা জানালেন আমালের পরিচালক

আবুল বাশার মিরাজ:ঘুম থকে ওঠার পর আর ঘুমাতে যাওয়ার আগে এখন সবচেেয় বেশি যে শব্দটা শুনি তা হল ‘রোহিঙ্গা’। কারণ চোখের সামনে ভেসে ওঠে কিছু মানুষ খাবার পানি ও খাদ্য ছাড়া মৃত্যুর প্রহর গুনছে। রোহিঙ্গারাই হচ্ছেন র্বতমান পৃথিবীর সবচয়ে নীপিড়িত জনগোষ্ঠীগুলোর একটি। বাংলাদেশে অবস্থানরত এ জনগোষ্ঠিকে নিয়ে কাজের অভিজ্ঞতা জানালেন ‘আমাল’ এর পরিচালক ইশরাত করিম ইভ। সিঙ্গাপুরের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে (ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অফ সিঙ্গাপুর) একটি অনলাইন লেকচারে তিনি এ অভিজ্ঞতা জানান। প্রায় ঘন্টাব্যাপী তিনি রোহিঙ্গাদের বিষয়ে কথা বলেন।  

ইশরাত করিম ইভ বলেন, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসার পর থেকেই তাঁর প্রতিষ্ঠান তাঁদের পাশে থেকে কাজ করতে শুরু করেন। রোহিঙ্গাদের প্রতি যা করছে মায়ানমার সরকার, তা সমগ্র মানবতার বিরুদ্ধেই অপরাধ। এক হাজার বছরের বেশি সময় ধরে আরাকানে বিকশিত হতে থাকা রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব সুবিধা না দেয়া, জোরপূর্বক শ্রমে নিয়োগ করা, বিচারবর্হিভূতভাবে গ্রেফতার করা, মালিকানাস্বত্ব, সার্বজনীন শিক্ষা, চিকিৎসা, উপযোগ সেবা ও মৌলিক মানবাধিকার হতে বঞ্চিত করার মাধ্যমে নিমর্মতার শেষ সীমানাটুকু অতিক্রম করেছে মায়ানমার সরকার।

ইভ বলেন, আমরা রোহিঙ্গাদের জন্য জন্য আর্থিক সহযোগিতা, বাড়িঘর নির্মাণ, নলকূপ স্থাপন, স্বাস্থ্যসেবা, শিশুদের শিক্ষার ব্যবস্থা, খাবার বিতরণসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছি। তিনি আরো বলেন দিনের পর দিন খেয়ে না খেয়ে তিঁনি ও তার সংগঠনের কর্মীরা তাদের জন্য কাজ করেছেন। বর্তমানেও তাঁদের কাজ (প্রজেক্ট) চলমান রয়েছে।

অনলাইন লেকচারে কি বললেন, এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিঁনি বলেন, রোহিঙ্গাদের দুর্দশা-কষ্টের কথা বলেছি, বাংলাদেশ সরকারের পাশে থাকার কথা বলেছি। রোহিঙ্গাদের কিভাবে এ থেকে উত্তোরণ করা যায় তা তাঁদের সাথে শেয়ার করেছি। বিশ্বদরবারে এ বার্তাগুলো রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে কাজ করবে এটাই প্রত্যাশা তার।

antalya bayan escort bursa bayan escort adana bayan escort mersin bayan escort mugla bayan escort samsun bayan escort konya bayan escort