কৃষিতে সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ারের হাতছানি

মো:মাহমুদুর রহমান সোহেব:খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ন বাংলাদেশের আগামীদিনের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার জন্য পুষ্টিগুণাগুণ সম্পন্ন নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা, স্বল্প জায়গায় অধিক উৎপাদনক্ষম প্রযুক্তি উদ্ভাবন, কৃষিজাত পণ্যে উৎপাদনের মাধ্যমে সর্বত্র সবুজায়নের লক্ষ্যে দক্ষ কৃষিবিদ তৈরির বিকল্প নেই। এতে দেশের সর্বত্র পুষ্টিগুণাগুণ সম্পন্ন নিরাপদ খাদ্যে নিশ্চিত হবে। পাশাপাশি দেশের সর্বত্র সবুজায়নের মাধ্যমে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা হবে।

বর্তমানে দেশের চার কোটি লোক পুষ্টি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। বছরে ঘাটতি রয়েছে ৭৫ লাখ টন দুধের, ২০০ কোটি ৮০ লাখ পিস ডিমের। আর পূর্বের তুলনায় মাংসের চাহিদা বেড়েছে ৩০ শতাংশ। এ লক্ষ্য মাত্রা পূরণে দেশের চারটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়সহ মোট ১১টি বিশ্ববিদ্যালয়ে তৈরি হচ্ছে কৃষি সেক্টরের দক্ষ গ্রাজুয়েট। যারা অবদান রাখছে দেশে-বিদেশে কৃষিখাতের বৈপ্লবিক পরিবর্তনে এবং সুনামের সাথে কর্মরত রয়েছে স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানে। সর্বশেষ নতুন প্রজাতির ছত্রাক আবিষ্কার করে বিশ্বব্যাপী তাক লাগিয়ে দিয়েছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েট ড. নারায়ণ চন্দ্র পাল।

জিডিপিতে এ খাতের অবদান ১৪.১০% এবং নিয়োজিত জনশক্তি ৪০.৬%। তাই এ সেক্টরের সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ারের অংশীদার হওয়ার সুবর্ণ সুযোগ হাতছানি দিয়ে ডাকছে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের। দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি বছরে ৩০০০ এর অধিক শিক্ষার্থীরা এ বিষয়ে পড়াশুনার সুযোগ পেয়ে থাকে। তবে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি একটু আলাদা এজন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নেয়ার প্রয়োজন। এক্ষেত্রে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারীর জন্য অনেকটাই সহজ।

স্নাতক পাশ করার সাথে সাথেই রয়েছে বিভিন্ন জায়গায় চাকুরির সুযোগ। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতার পাশাপাশি বিসিএস পরীক্ষায় পেশাগত পদের সুযোগ। সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে বিভিন্ন সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করার যেমন-বারি, বিআরআরআই, আইইডিসিআর, বিনা, বিএলআরআই, বার্ক, বিজেআরআই, বিএডিসি, সিডিবি, এসআরডিআই, ডিএই, বিটিআরআই, বিএফআরআই ইত্যাদি। এছাড়াও চাকুরির সুযোগ রয়েছে বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে যেমন-সুগার মিলস, সিড কোম্পানি, পেস্টিসাইড কোম্পানি, টি গার্ডেন, ফার্টিলাইজার কোম্পানি, টোবাকো কোম্পানি ইত্যাদিতে। আর উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে স্কলারশিপ নিয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শিক্ষাগ্রহন, গবেষণা ও চাকুরীর হাতছানিতো থাকছেই। তাই কৃষি নির্ভর দেশের কৃষি সেক্টরকে এগিয়ে নিতে কৃষি শিক্ষা গ্রহনই সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত।
---------
লেখক:
শিক্ষার্থি, কৃষি অনুষদ, চতুর্থ বর্ষ
শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

antalya bayan escort bursa bayan escort adana bayan escort mersin bayan escort mugla bayan escort samsun bayan escort konya bayan escort