আপনার দেয়া মাত্র দশটি টাকায় বেঁচে যেতে পারে সৈকত

আবুল বাশার মিরাজ, বাকৃবি:আচ্ছা, বলুন তো...১০ টাকার কমে এক কাপ কফি মিলবে! না। একটি বেনসন সিগারেট? তাও না। আবার আপনি দশ টাকার কমে মোবাইল ফোনে হয়তো টাকাই ভরাতে পারবেন না এখন। আর হ্যাঁ, মিনিট কয়েক কথা বললেই সে টাকা হাওয়ায় মিলে যাবে।অথচ ১০ টাকার বিনিময়ে বেঁচে যাবে একটি জীবন! হ্যাঁ সত্যিই আপনার দেয়া মাত্র দশটি টাকায় বেঁচে যেতে পারে ক্যান্সারে (Nasopharyngeal Carcinoma) আক্রান্ত বগুড়া জিলা স্কুলের দশম শ্রেণির মেধাবী শিক্ষার্থী। আপনার ১০ টাকার জন্যই তাকিয়ে আছেন এই শিক্ষার্থী।

সৈকতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সৈকতের চিকিৎসা ব্যয় প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা। ইতিমধ্যে চিকিৎসার জন্য প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা খরচ করে ফেলেছে তার পরিবার। চিকিৎসক বলেছ তাড়াতাড়ি ভারতে নিয়ে গিয়ে কেমো দিতে। আর মাত্র কয়েকটা কেমো দিলেই তার কেমো কোর্স শেষ হবে। সুস্থ হয়ে মা বাবার কোলে ফিরবে সৈকত। হাসি আনন্দে মিলতে পারবে স্কুলের বন্ধুদের সাথে।  

কিন্তু বর্তমানে পরিবারের কাছে এখন আর কোন টাকা অবশিষ্ট নেই। তার চিকিৎসার ভার বহন করতে করতে তার নিম্নবিত্ত পরিবার এখন প্রায় পথে বসেছে। এই পরিস্থিতিতে মানুষের কাছে হাত পাতা ছাড়া আর কোন পথই আর খোলা নেই। মাত্র ২০ লক্ষ টাকার কাছে হেরে যেতে দিতে পারি না একটি হাসিমুখ। হারিয়ে যেতে দিতে পারি না অনেকগুলো স্বপ্নকে।

১০ লাখ বা দশ হাজার টাকা নয়, মাত্র দশটি টাকা বিকাশ করলেই অর্থের যোগান হয়ে যাবে। আপনি চাইলেই ১০ টাকা সাহায্য করে শরিক হতে পারেন বেঁচে থাকার একটি জীবনযুদ্ধে। দেশের ২ লাখ মানুষ মাত্র ১০ টাকা দিলে ২০ লক্ষ টাকা তার পরিবার এর হাতে তুলে দিতে পারা সম্ভব।

সাহায্য পাঠাবেন যেভাবে:
বিকাশ: ০১৭৬১২৯৩৮৪৫ (সৈকতের মা), বিকাশ: ০১৭২৫১৮৪৯৬৫ (সৈকতের বাবা), রকেট : ০১৭৬১২৯৩৮৪৫৮ (সৈকতের মা)
ব্যাংক হিসাব নম্বর:
জ্যোৎস্না রানী সাহা, হিসাব নং: ০০২১০৩১০০৩৬৭১১ (যমুনা ব্যাংক, বড়গোলা শাখা, বগুড়া)