গ্রামীণ নারী দিবস উপলক্ষে বাকৃবিতে তারুণ্যের সমাবেশ

বাকৃবি প্রতিনিধি:‘কৃষিক্ষেত্রে গ্রামীণ নারীর মজুরিবিহীন শ্রমের মূল্য আমরা দিতে চাই না। নারীর মর্যাদা প্রদানে এবং তাদের প্রতি নির্যাতন প্রতিরোধে সবার দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন দরকার। আমাদের সবার উচিৎ গ্রামীণ নারীদের অবদানের স্বীকৃতি এবং পুরুষদের ন্যায় সমমর্যাদা প্রদান।’

আগামী ১৫ অক্টোবর আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস। দিবসটি  উপলক্ষে আয়োজিত তারুণ্যের সমাবেশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে সোমবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি। তারুণ্যের সমাবেশে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে ক্যাম্পাসের জনপ্রিয় ত্রিভুজ সাংস্কৃতিক সংগঠন। সাংবাদিক সমিতির সভাপতি শাহীদুজ্জামান সাগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. লুৎফুল হাসান এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম উপস্থিত ছিলেন।


অনুষ্ঠানের শুরুতেই নারীর বিভিন্ন কর্মকান্ডের উপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের জেন্ডার উপদেষ্টা বনশ্রী মিত্র নিয়োগী। গ্রামীন নারীর অবদান বিষয়ে আলোকপাত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ড. অধ্যাপক ইসমত আরা বেগম। তারুণ্যের সমাবেশে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন কৃষিতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. মাহফুজা বেগম।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বলেন, নারীরা আজ কোনো ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই। অনেক ক্ষেত্রে নারীরা পুরুষদের চেয়েও এগিয়ে। তরুণেরা গ্রামীণ নারীর অবদান উপলব্ধি করতে পারলেই তাঁদের স্বীকৃতি প্রদান সম্ভব। এ জন্য তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে।