উপকূলীয় এলাকায় সূর্যমুখী চাষের উজ্জ¦ল সম্ভাবনা

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:সূর্যমুখী একটি উৎকৃষ্ট তেল জাতীয় ফসল। সূর্যমুখীর বীজে শতকরা ৪০-৪৫ ভাগ তেল আছে। এই তেল সয়াবীন ও সরিষার তেলের তুলনায় অধিক গুনগত মানসম্পন্ন এবং মানুষের শরীরের উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। বাংলাদেশে বছরে প্রায় ২১ লাখ টন তেল আমদানি করতে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা খরচ হয়। সূর্যমুখী চাষে এ খরচের পরিমান কমানো যেতে পারে।

উপকূলীয় অঞ্চলে লবণাক্ততার কারণে রবি মৌসুমে অধিকাংশ জমি পতিত থাকে। মধ্যম মাত্রার লবণাক্ততা এবং তাপ সহনশীল হওয়ায় দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে বিলম্বে আমন ধান সংগ্রহ করার পরও পতিত জমিতে সূর্যমুখী চাষ করা সম্ভব। এটি একটি লাভজনক ফসল। নিয়ম মেনে চাষ করলে প্রতি বিঘায় প্রায় ১৫-২০ হাজার টাকা লাভ পাওয়া যায়। সরিষার তেল ভাংঙ্গানো মেশিনেই সূর্যমুখীর তেল ভাঙ্গানো যায়।

বিএআরসি’র অর্থায়নে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড.স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত এবং প্রফেসর ড. মো: ফজলুল হক এর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত গবেষণায় সূর্যমুখী লবণাক্ত এলাকায় লাভজনক ফসল হিসাবে চাষ করা সম্ভব বলে প্রমানিত হয়েছে।