Friday, 17 November 2017

 

পূর্ণাঙ্গ রহমত বরকত মাগফিরাত পেতে রমজানে অনেক কিছু করণীয় রয়েছে

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্ক:রহমত, বরকত, মাগফিরাতের মাস মাহে রমজান চলছে। রমজান মাস অন্যান্য সাধারণ মাসের মতো নয়। শুধু রোযা রাখালই এই মাসের হক আদায় হয় না। রমজানের পূর্ণাঙ্গ রহমত বরকত মাগফিরাত পেতে আরো অনেক কিছু করণীয় রয়েছে। এ মাসে সকল আদব রক্ষা করে পুরো মাস রোযা রাখা প্রত্যেক মুসলিমের কর্তব্য।

 

  • রমজানের রাতের বিশেষ আমল হল কিয়ামে রমযান তথা তারাবীহ। এ মাসের অফুরন্ত রহমত ও মাগফিরাত লাভ করার জন্য এবং প্রতিশ্রুত ছওয়াব ও পুরস্কার পাওয়ার জন্য তারাবী নামাযের প্রভাব অপরিসীম।
  • দান-সদকা সর্বাবস্থাতেই উৎকৃষ্ট আমল, কিন্তু রমজানে তার গুরুত্ব অনেক বেড়ে যায়।
  • এ মাস কুরআন অবতরণের মাস। এ মাসে অধিক পরিমাণে কুরআন তেলাওয়াত করা। অন্তত একবার হলেও কুরআন মাজীদ খতম করা।
  • এ মাসে শয়তান শৃঙ্খলাবদ্ধ থাকে। এই সুযোগে অধিক পরিমাণে নফল ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জন করা যায়।
  • রমযানে সাহরীতে উঠলেই দু’চার রাকাত তাহাজ্জুদ নামায সহজেই পড়া যায়। বছরের অন্য দিনের মতো কষ্ট করার প্রয়োজন হয় না। কিন্তু অমনোযোগী হওয়ার ফলে কিংবা সাহরীতে অতি ব্যস্ততার কারণে তাহাজ্জুদ আদায়ের সুযোগ যেন হাতছাড়া না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা।
  • এ মাস রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও জান্নাত লাভের মাস। তাই বেশি বেশি আল্লাহ তাআলার শরণাপন্ন হয়ে কান্না-কাটি করে দুআ করা একান্ত কাম্য।
  • রমযানে কৃত গুণাহের কথা স্মরণ করে বেশি বেশি তওবা ইস্তেগফার করা এবং আল্লাহ তাআলার দরবারে ক্ষমা মঞ্জুর করিয়ে নেওয়ার এটিই উত্তম সময়। বিশেষ করে ইফতার ও তাহাজ্জুদের সময় আল্লাহ তাআলার দরবারে ক্ষমা চাওয়া এবং দুআ করা উচিত।
  • রমযানে শেষ দশকের মাসনূন ই’তিকাফ অত্যন্ত ফযীলতের আমল।
  • ইবাদত-বন্দেগীর মাধ্যমে রাত্রি জাগরণ করে সহস্র রজনী অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ ও উত্তম রাত-লাইলাতুল কদর তালাশ করা কর্তব্য।

মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের মাঝে পবিত্র রমজান পালনের সুযোগ করে দিয়েছেন। আসুন আমরা পরম করুনাময়ের দেওয়া এ সুযোগটিকে কাজে লাগিয়ে পরিশুদ্ধ হতে সচেষ্ট হই।-আমিন