Friday, 24 November 2017

 

ভুলের জন্য ক্ষমা লাভের শ্রেষ্ঠ উপায় হচ্ছে দোয়া

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্ক:জীবনের চলতি পথে মানুষ প্রতিনিয়তই ভুল করে থাকে। আর এ ভুলের জন্য ক্ষমা লাভের শ্রেষ্ঠ উপায় হচ্ছে দোয়া। এটি বান্দার জন্য স্রষ্টার একটি নেয়ামতও বটে। ইসলাম ধর্মে দোয়া একটি স্বতন্ত্র ইবাদত। মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে মানুষ যত চাইবে আল্লাহ তত দেবেন। কাজেই মুমিন মুসলমানরা মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দু’হাত তুলে সৎ নিয়তে কিছু চাইলে নিশ্চয়ই সেটি কবুল করবেন।

তবে দোয়া কবুলের জন্য কিছু নির্দিষ্ট শর্ত আছে। নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে দোয়া করলে নিশ্চয়ই আল্লাহ তা কবুল করবেন। দোয়া কবুলের জন্য দিনরাতের মাঝে এমন অনেক সময় ও মুহূর্ত রেখেছেন, যে সময় দোয়া করলে তা কবুল হয় বলে হাদিসে বিভিন্নভাবে বলা হয়েছে।

১. রাতের শেষ তৃতীয়াংশের যদি দোয়া করা হয়, হাদিসে এসেছে, হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘প্রত্যেক রাতের শেষ তৃতীয়াংশে আল্লাহ মহান সবচেয়ে কাছের আকাশে নেমে আসেন এবং বলেন, কে আমাকে ডাকছো? আমি তোমার ডাকে সাড়া দেব। কে আমার কাছে চাইছো? আমি তাকে তা দেব। কে আছো আমার কাছে ক্ষমা প্রার্থনাকারী’ আমি তোমাকে ক্ষমা করে দেব। (মুসলিম)

২. জুমার দিনের দোয়া অবশ্যই কবুল করা হয়- হাদিসে এসেছে হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) আমাদের একদিন শুক্রবারে ফজিলত নিয়ে আলোচনা করছিলেন। আলোচনায় সেদিন তিনি বলেছিলেন, ‘জুমার দিনে এমন একটি সময় আছে, যে সময়টায় যদি কোনো মুসলিম নামাজ আদায়রত অবস্থায় পায় এবং আল্লাহর কাছে কিছু চায়, আল্লাহ মহান অবশ্যই তার সে চাহিদা বা দোয়া কবুল করবেন এবং এরপর রাসূল (সা.) তার হাত দিয়ে ইশারা করে সময়টা সংক্ষিপ্ততার ইঙ্গিত দেন।’(বুখারি)

৩. আজান ও ইকামতের মধ্যবর্তী সময়ের দোয়া কবুল হয়- হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘আজান ও ইকামতের মধ্যবর্তী সময়ের দোয়া করা হলে তা ফিরিয়ে দেয়া হয় না।’ (তিরমিজি)

৪. সেজদারত অবস্থায় দোয়া করা হলে তা কবুল হয়-রাসূল (সা.) বলেন, ‘যে সময়টাতে বান্দা আল্লাহর সবচেয়ে নিকটতম অবস্থায় থাকে তা হলো সেজদারত অবস্থা। সুতরাং তোমরা সে সময় আল্লাহর কাছে বেশি বেশি চাও বা প্রার্থনা করো।’ (মুসলিম)

৫. জমজমের পানি পান করার সময়ের দোয়া করা হলে তা কবুল হয়- রাসূল (সা.) বলেন, ‘জমজম পানি যে নিয়তে পান করা হবে, তা কবুল হবে।’ অর্থাৎ এই পানি পান করার সময় যে দোয়া করা হবে, ইনশাআল্লাহ তা অবশ্যই কবুল হবে। (ইবনে মাজাহ)

আসুন আমরা সকলে আমাদের ভুলের জন্য মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা  চাই। নিশ্চয়ই মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সকল গোনাহ্ মাফ করে আমাদের সঠিক পথে চলার তাওফিক দিবেন-আমিন