Saturday, 21 April 2018

 

ইসলামে মানবসেবা সর্বোত্তম গুণ

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্ক:মানবতা, শান্তি, কল্যাণ সব কিছুই নিহিত আছে ইসলামে। আর এসব কিছু কার্যকর করার তাগিদ দেওয়ার পাশাপাশি এসব কাজে অংশগ্রহণ করার ব্যাপারে উৎসাহও দিয়েছে। ইসলামে মানবসেবা বা পরোপকার সর্বোত্তম গুণ হিসেবে বিবেচিত হয়েছে।

ইসলামে শুধু নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত থাকা সমর্থন করে না। ইসলাম চায় একে অন্যের সাহায্য-সহযোগিতার মধ্য দিয়ে গড়ে তুলতে একটি সমৃদ্ধ ভ্রাতৃসমাজ। এ জন্য এখানে রয়েছে ধনী-গরিবের জন্য নানা দায়িত্ব ও কর্তব্য।

পবিত্র কোরানের সুরা বাকারায় আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেছেন, যদি তোমরা দান-সদকাহ বা সাহায্য-সহযোগিতা প্রকাশ্যে কর তাও ভালো। আর যদি এমন কাজ গোপনে বা অপ্রকাশ্যে কর, তা আরো ভালো। পবিত্র কোরানে আরো ইরশাদ হয়েছে, তোমাদের কাছে কোনো গরিব, অসহায়, এতিম-মিসকিন কিছু চাইলে ধমক দিয়ে ফিরিয়ে দিও না।

হজরত মোহাম্মাদ [সা.] তাঁর সারা জীবনকে মানবতার সেবায় উৎসর্গ করেছিলেন। কেবল জাতি-ভাই কিংবা মুসলমানদের ব্যাপারে নয়, ভিন্ন ধর্মের অনুসারীদের সেবার ক্ষেত্রেও উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রেখেছেন। তিনি ছিলেন মানবতার নবী। তাঁর অনুসারী হিসেবে মানবসেবার ক্ষেত্রে সকল মুমিন-মুসলমানদের ব্যাপক ভূমিকা থাকা উচিত। মানবসেবা, মানবতার কল্যাণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করাই ছিল মানবতার নবীর জীবনের মহান ব্রত। নবীজি [সা.] বলেছেন, তোমাদের মাঝে যারা তার প্রতিবেশীকে উপোস রেখে খাবার গ্রহণ করে, সে আমার অনুসারী নয়। ইসলাম ও নবীজি [সা.] এভাবেই মানবসেবাকে গুরুত্ব প্রদান করেছেন।

মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সকলকে মানবসেবায় ব্রতী হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।