Tuesday, 20 February 2018

 

ইসলামের আলোকে কোরবানির পশু নির্বাচন

কৃষিবিদ মোহাইমিনুর রশিদ:মহান আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি অর্জন, নৈকট্য লাভ ও ত্যাগের শিক্ষা প্রাপ্তির উদ্দেশ্যে প্রিয়বস্তু বা প্রিয়প্রাণি উৎসর্গের নামই কোরবানি। শরিয়তের পরিভাষায় মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট সময়ে সুনির্দিষ্ট পশু জবাই করাকে কোরবানি বলে (শামি ৫ম খন্ড)। ইসলামি শরিয়াহ মোতাবেক ছয় ধরনের পশু দ্বারা কোরবানি আদায় করার তাগিদ রয়েছে। এগুলো হলো ছাগল, ভেড়া, দুম্বা, গরু, মহিষ এবং উট। সুন্দর, আকর্ষণীয়, প্রিয় ও অতি পছন্দনীয় পশু কোরবানির মাধ্যমে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য অর্জন করা যায়।

জাতীয় ঈদগাহ ও বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে ঈদুল আযহার নামাজের সময়সূচি

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্ক:যথাযথ মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাবগম্ভীর পরিবেশে আগামী ২ সেপ্টেম্বর শনিবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে দেশের প্রধান ঈদ জামাত সকাল ৮ টায় অনুষ্ঠিত হবে। বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যায়ক্রমে ৫টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম জামাত সকাল ৭টায়, দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টায়, তৃতীয় জামাত সকাল ৯টায়, চতুর্থ জামাত সকাল ১০টায় এবং পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাত সকাল ১০.৪৫টায় অনুষ্ঠিত হবে।

আল্লাহর রাস্তায় নিজের সর্বস্ব বিলিয়ে দেওয়ার এক দৃপ্ত শপথই হচ্ছে হজ

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্কঃ হালাল উপার্জনের টাকায়, আল্লাহ্‌কে কাছে পাওয়ার ব্যাকুলতায়, সর্বোপরি আল্লাহর রাস্তায় নিজের সর্বস্ব বিলিয়ে দেওয়ার এক দৃপ্ত শপথই হচ্ছে হজ। বর্তমান সমাজে অহরহ মারামারি,অসৎ আয়, পাপাচার, মিথ্যা, হিংসা, বিদ্বেষ, সুদ, দুর্নীতি এসব এক ব্যাধিতে পরিনত হয়েছে। আর এসব থেকে মুক্ত হয়ে সৎ ও সুশৃঙ্খল জীবনযাপন করাই হচ্ছে হজের শিক্ষা।

আগামী ২ সেপ্টেম্বর শনিবার পবিত্র ঈদুল আযহা

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্ক:আগামী ২ সেপ্টেম্বর শনিবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে। বুধবার সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মুকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্ম মন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।

ইসলাম বৃক্ষ রোপনের তাগিদ দেয়

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ইসলামিক ডেস্কঃ মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গাছ-গাছালির ভূমিকা অপরিসীম। বৃক্ষ জীবনের বহু মূল্যবান অক্সিজেন সরবরাহ করে। মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর বিষাক্ত কার্বন ডাই-অক্সাইড গ্যাস গ্রহণ করে বায়ুমণ্ডলকে বিশুদ্ধ রাখে। হজরত মালেক রা: বলেছেন, হজরত রাসূল সা: ইরশাদ করেছেন, ‘কোনো মুসলমান বৃক্ষরোপণ করল অথবা চাষাবাদ করল। অতঃপর তা থেকে পশু-পাখি, মানুষ অথবা জীবজন্তু ভক্ষণ করল। এসব কিছু তার পক্ষ থেকে সদকা হিসেবে গণ্য হবে (মুসলিম শরিফ)।