Saturday, 18 November 2017

 

ব্যবসার পাশাপাশি এনিম্যাল হেলথ্ কোম্পানিগুলোকে মানুষের কল্যানে কাজ করতে হবে-ডিডি (প্রশাসন)

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:ব্যবসার পাশাপাশি এনিম্যাল হেলথ্ কোম্পানিগুলোকে মানুষের কল্যানে কাজ করতে হবে। এজন্য কোম্পানিগুলোকে মানসম্পন্ন পণ্য বাজারজাত করতে হবে যা নিরাপদ ডিম ও ব্রয়লার মাংস উৎপাদনে সহায়ক এবং দেশের ভোক্তাদের কাছে গ্রহনযোগ্য হয়।

শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে বাংলাদেশ ভেটেরিনারী পোল্ট্রি এসোসিয়েশন আয়োজিত "পোল্ট্রি ব্যবস্থাপনা" শীর্ষক এক কর্মশালায় প্রধান অতিথি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ডিডি (প্রশাসন) ডা. আইনুল হক এ কথা বলেন।

তিনি বলেন দেশের অন্যান্য খাতের মতো এনিমেল হেলথ্ সেক্টরেও ছোট খাটো সমস্যা থাকবে তবে তা সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসতে হবে।

বিশিষ্ট পোল্ট্রি কনসালট্যান্ট জনাব রফিকুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা লাইভস্টক অফিসার ডা. লুৎফর রহমান।

কর্মশালায় বক্তারা বলেন পোল্ট্রি খামারে কাঙ্খিত উৎপাদন নিশ্চিত করতে প্রয়োজন গুনগত ও মানসম্পন্ন পণ্য, বিশেষ করে নিরাপদ ডিম ও ব্রয়লার উৎপাদন করতে হলে এমন পণ্য ব্যবহার করা প্রয়োজন যা ভোক্তাদের জন্য নিরাপদ।

এ সময় উপস্থিত ডা. সবুর বলেন প্রযুক্তি এগিয়েছে, এগিয়েছে দেশ। সেই সাথে এগিয়েছে দেশের পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রি। এ প্রসঙ্গে ডা. সবুর উল্লেখ করেন আগে ১.৫ কেজি ব্রয়লার উৎপাদনে ৫৬ দিন সময় লাগতো। আধুনিক বিজ্ঞানের কল্যাণে সময়ের ব্যবধান কমে ২৮-৩০ দিনেই ১.৫ কেজি ব্রয়লার উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে। এসব কিছুই প্রযুক্তি এবং উন্নতমানের পণ্যের কারনেই হয়েছে। আজ দেশের পোল্ট্রি খামারীরা লাভবান হচ্ছে।

দেশের মানবস্বাস্থ্য উন্নয়নে প্রাণি স্বাস্থ্য উন্নয়নের বিকল্প নাই উল্লেখ করে ডা. সরোয়ার জাহান বলেন-সততা নিষ্ঠার সাথে সেক্টরের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে দেশের পোল্ট্রি খামারীদের জন্য নিজেদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাতে হবে।

সেমিনারে উপস্থিত ডা. কামরুজ্জামান বলেন পোল্ট্রি-ডেয়রী মৎস্য সহ প্রাণিসম্পদের প্রতিটি ক্ষেত্রেই "Food Safety" এর কথা মাথায় রেখে খামারীদের পণ্য উৎপাদন করতে হবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট সকলের মাঝে সমন্বয় সাধন করা অত্যন্ত জরুরী।

"AHCAB" এর বর্তমান সভাপতি জনাব এ কে এম আলমগীর বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরে এনিমেল হেলথ্ পণ্য বিপননের সাথে জড়িত। পোল্ট্রি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক এই কর্মশালায় উপস্থিত থাকতে পেরে তিনি আয়োজকদের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

কর্মশালার সভাপতি দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ পোল্ট্রি কনসালট্যান্ট জনাব রফিকুল হক বলেন, খামারীদের ভাল পণ্য ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন করা প্রয়োজন।

কর্মশালায় অন্যন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জনাব তারেক মাহমুদ খান, ডা. রাফিউল করিম, ডা. এনাম আহমেদ, ডা. খন্দকার মাহমুদ হোসেন, ডা. রাশেদ, ডা. মোস্তফা, কৃষিবিদ আফতাব আলী, ডা. গদাধর চন্দ্রশীল, মিসেস নাহিদ জাহান, অখিল চন্দ্র ভৌমিক, মাহবুব হোসেন, ডা.জামিল হুসেইন, ডা. আব্দুর রহমান, মাহবুবুর রহমান, মোহাম্মদ সোহেল ইকবাল, সফিকুল গনি, আবু সাইদ প্রমুখ।

বাংলাদেশ ভেটেরিনারী পোল্ট্রি এসোসিয়েশন আয়োজিত পোল্ট্রি ব্যবস্থাপনা শীর্ষক এক কর্মশালায় প্রায় ৫০ জনের মতো অতিথি উপস্তিত ছিলেন।পরে সকলেই মিলে এক নৈশ্যভোজে অংশ নেন।