Saturday, 16 December 2017

 

"এখন আমরা সবজি ভাতে বাঙালী"-মো. মকবুল হোসেন এমপি

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:এক সময় "আমরা মাছে ভাতে বাঙালী ছিলাম, এখন আমরা সবজি ভাতে বাঙালী।"আমাদের আবাদী জমি কমে যাচ্ছে। তারপরও সবজি উৎপাদন বৃদ্ধির বিবেনায় বিশ্বে তৃতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ। এটা সম্ভব হয়েছে দেশের গবেষক ও কৃষকদের নিরলস প্রচেষ্টায়। আর কৃষিবান্ধব সরকারের সঠিক দিকনির্দেশনার কারণে।

রাজধানীর খামারবাড়ির আ.কা.মু গিয়াস উদ্দীন মিলকী অডিটরিয়াম চত্বরে তিনদিন ব্যাপি জাতীয় সবজি মেলা ২০১র সমাপনী দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মকবুল হোসেন এমপি এসব কথা বলেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ মো. হামিদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রসারণ) মো. মোশারফ হোসেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হর্টিকালচার উইংয়ের পরিচালক মো. কুদরত-ই-গনী।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সবজি চাষে অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ ব্যাক্তি, প্রতিষ্ঠান, জেলা ও মেলায় অংশগ্রহনকারী স্টলের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করেন। পুরষ্কার হিসেবে ছিলো ক্রেষ্ট, সনদ ও নগদ টাকা।

২০১৬ সালে শাকসবজি আবাদে বিশেষ অবদানের জন্য ব্যক্তি পর্যায়ে প্রথম হয়েছেন খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার মো. আবু হানিফ মোড়ল। দ্বিতীয় হয়েছেন পাবনা ঈশ্বরদী উপজেলার মো. আবদুল বারী। তৃতীয় হয়েছেন পাবনা ঈশ্বরদী উপজেলার মোছা. বেলী বেগম।

এছাড়াও বাড়ির ছাদে শাকসবজি আবাদে বিশেষ অবদানের জন্য ব্যক্তি পর্যায়ে ঢাকার গুলশান এলাকার এ এ কামরুজ্জামানকে প্রথম পুরষ্কার প্রদান করা হয়। পরিবেশবান্ধব জৈব প্রযুক্তি ব্যরহার করে নিরাপদ সবজি উৎপাদনে অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার ময়েনপুর কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ কেন্দ্রকে প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে বিশেষ পুরষ্কার প্রদান করা হয়।

সবজি উৎপাদন মাধ্যমে দেশে সবজির চাহিদা পূরণে বিশেষ অবদানের জন্য জেলা পর্যায়ে প্রথম দিনাজপুর, দ্বিতীয় টাংগাইল ও তৃতীয় হয়েছে ময়মনসিংহ জেলা।

জাতীয় সবজি মেলা ২০১৭ এ অংশগ্রহনকারী স্টলগুলোর মধ্যে সরকারি পর্যায়ে প্রথম হয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, যৌথভাবে দ্বিতীয় হয়েছে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) ও বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) এবং তৃতীয় হয়েছে কৃষি তথ্য সার্ভিস।

বেসরকারি পর্যায়ে প্রথম হয়েছে লাল তীর সীড লিমিটেড, দ্বিতীয় হয়েছে এসিআই এবং তৃতীয় হয়েছে মেটাল এগ্রো লিমিটেড। মেলায় অংশগ্রহনকারী অন্যান্য সকল স্টলকে পুরস্কৃত করা হয়। মেলায় মোট ৪৭টি স্টল অংশগ্রহন করে। এবারের মেলার প্রতিপাদ্য ছিল ‘সুস্থ সবল স্বাস্থ্য চান, বেশি করে সবজি খান’।
--কৃষি তথ্য সার্ভিসের সৌজন্যে