Monday, 18 December 2017

 

‘ই-ভিলেজ’ হবে উন্নত বাংলাদেশের ভিত্তি-জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

কৃষি ফোকাস ডেস্ক:‘ই-ভিলেজ’ হবে উন্নত বাংলাদেশের ভিত্তি। ‘ই-ভিলেজ’ এর মাধ্যমে বাংলাদেশের গ্রামগুলো হবে প্রযুক্তিনির্ভর উন্নত গ্রাম। এ উন্নত গ্রাম থেকেই সূচিত হবে অর্থনৈতিক কার্যক্রম। বৃহস্পতিবার কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ‘ই-ভিলেজ’ প্রকল্পের ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে  বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ই-ভিলেজ’ হবে সামাজিক মিলনকেন্দ্র যেখানে গ্রামবাসী জানতে পারবে তথ্য, প্রযুক্তি ও আধুনিক কৃষি ব্যবস্থা। একটি উন্নত ডেটাবেইজ হবে-সেখানে থাকবে শস্য উৎপাদন ও বিপণনের উন্নত ব্যবস্থাপনা, মাটির গঠন অনুসারে সার প্রয়োগের তথ্য বা শস্যের ধরণ অনুসারে কীটনাশক ব্যবস্থা।

ই-ভিলেজ প্রকল্পটির মাধ্যমে একটি স্মার্ট অ্যাপ্ তৈরি করা হবে, যা ছবিসহ বাংলায় সহজে কৃষকের ব্যবহার উপযোগী হবে। একই সঙ্গে অডিও ভয়েসযুক্ত করা হবে। যার মাধ্যমে কৃষকরা তার জমি ও ফসলের কী অবস্থা তা জানতে পারবে। সবজি ক্ষেতের মাধ্যমে প্রকল্পটি শুরু হলেও ধীরে ধীরে অন্য ফসলকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। কৃষকরা ফোন সেটটি ওপেন করলেই তাতে একটি বার্তা যাবে, যাতে নির্দেশনা থাকবে-তার ক্ষেতের সবশেষ কী অবস্থা। একই সঙ্গে করণীয়ও জানিয়ে দেবে কী ধরনের ওষুধ, সার, পানি বা অন্যান্য উপকরণ দিতে হবে।

কৃষকরা তাদের ক্ষেতের জটিল কোনো অবস্থাতেও কারও দ্বারস্থ না হয়ে নিজেই সমাধান করতে পারবে। ‘ক্রিয়েটিং ই-ভিলেজ ইউজিং স্মার্ট টেকনোলজি’ নামের এ প্রকল্পের পাইলট পর্বে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে ক্ষমতায়িত করতে তাদের প্রশিক্ষিতও করা হবে।

সমঝোতা স্মারকে সিআরআই এর পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন শামস, আই সফটটোন চায়নার পক্ষে এর নির্বাহী সহ-সভাপতি ওয়েলটার ফাং ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে এর রেজিস্ট্রার ড. মোঃ ইসমাইল হোসেন মিয়া স্বাক্ষর করেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ মাহবুবর রহমানের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে সংসদ সদস্য কৃষিবিদ আবদুল মান্নান ও চীন দূতাবাসের চার্জ দ্য এফেয়ার্স ইয়াং লি চাও বক্তব্য রাখেন।
--পিআইডি’র সৌজন্যে