প্রাণিজ সম্পদকে এগিয়ে নেওয়ার আহবান জানালেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী
Friday, 22 September 2017

 

প্রাণিজ সম্পদকে এগিয়ে নেওয়ার আহবান জানালেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

আবুল বাশার মিরাজ, বাকৃবি প্রতিনিধি:মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বলেছেন বাংলাদেশ শস্য উৎপাদনে স্বয়ংম্পূতা হলেও প্রাণিজ আমিষ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূতা নয়। দ্রুত বর্ধনশীল জাত উন্নয়নের মাধ্যমে এ প্রাণিজসম্পদকে এগিয়ে নিতে পশুপালন গ্রাজুয়েটদের আহবান জানিয়েছেন। মঙ্গলবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে পশুপালন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে হলে, সবাইকে কাজ করতে হবে, তবেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের  সোনার বাংলা পরিণিত হবে।

এর আগে সকাল ১০ টায় ক্যাম্পাসে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। ‘বাংলাদেশে খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তায় পশুপালন গ্রাজুয়েটদের ভূমিকা’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে গতকাল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার আয়োজন করে বাংলাদেশ অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি অ্যাসোসিয়েশন (বাহা) ও পশুপালন অনুষদ। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আশরাফ আলীর সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেস বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. জসিমউদ্দিন খান ও আমেরিকান ডেইরি লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ড. হাসানুল এ. হাসান। অনুষ্ঠানটির পৃষ্ঠপোষকতা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর।

সেমিনারে প্রতিপাদ্য বিষয়ের প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পশুবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মুজাফফর হোসেন। তিনি বলেন, দেশ ও জাতির পুষ্টি নিরাপত্তায় পশুপালন গ্র্যাজুয়েটরা গুরুত্বপূর্র্ন ভুমিকা রেখেছেন। প্রতিবছর দেশে সীমিত সংখ্যক পশুপালন গ্রাজুয়েট বের হওয়ার কারণেই চাহিদা অনুযায়ী আমিষ উৎপাদন করা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, বাংলাদেশে মাত্র ২-৩ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে এ ডিগ্রী দেওয়া হচ্ছে। প্রাণিজ আমিষকে এগিয়ে নিতে দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে পশু পালন ডিগ্রি চালু করার জন্য তিনি সরকারের কাছে অনুরোধ জানান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন উদযাপন কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. রুহুল আমীন। শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন ইফতে খাইরুল আলম।