Saturday, 24 February 2018

 

বীজ বিলে রাষ্ট্রপতির সম্মতি

কৃষি ফোকাস:মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ দশম জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনে পাস হওয়া বীজ বিল, ২০১৮-তে স্বাক্ষর করার মাধ্যমে সম্মতি দিয়েছেন। গতকাল সোমবার রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে এই বিলটি আইনে পরিণত হলো। এর আগে গত সোমবার ২২ জানুয়ারী সামরিক শাসনামলে করা অধ্যাদেশ রহিত করে কৃষি বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও সরবরাহ ব্যবস্থার সমন্বয়ে ‘বীজ বিল, ২০১৮’ কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী সংসদে বিলটি পাসের প্রস্তাব করলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। বিলের ওপর দেওয়া জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে পাঠানো এবং সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নিষ্পত্তি করা হয়।

উল্লেখ্য গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে বিলটি সংসদে তোলার পর তা পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলে বলা হয়েছে, এই আইনের অধীনে সংঘটিত অপরাধ মোবাইল কোর্টে বিচার হবে। বিলে জাতীয় বীজ বোর্ড গঠনের বিধান রাখা হয়েছে।

বিলে বোর্ডের সভা, বোর্ডের সচিবের দায়িত্ব, বীজে জাত ও মান নিয়ন্ত্রণের ভূমিকা, বীজ ডিলারের নিবন্ধন, বীজের শ্রেণিবিন্যাস, বীজের প্রয়োজনীয় মানদণ্ড নির্ধারণ, নিয়ন্ত্রিত ফসলের বীজের বিক্রয় নিয়ন্ত্রণ, বীজ পরীক্ষাগার, বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সি, সনদ প্রদান, সনদপত্র বাতিল, বীজ পরিদর্শক, বীজ বিশ্লেষক, বীজ আমদানি-রফতানিসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বিধান করা হয়েছে।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্বলিত বিবৃতিতে কৃষি বলেন, দেশে কৃষির উৎপাদনশীলতা বাড়ানোর মাধ্যমে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ, বিক্রয়, মাননিয়ন্ত্রণ, আমদানি-রপ্তানি এবং কৃষক পর্যায়ে গুণগত মানসম্পন্ন বীজ সরবরাহের জন্য ‘দি সিড অর্ডিন্যান্স, ১৯৭৭’ রহিত করে বাংলা ভাষায় ‘বীজ আইন, ২০১৭’ প্রণয়নের প্রস্তাব করা হয়েছে।