Monday, 20 November 2017

 

বগুড়ার নন্দীগ্রামে বাড়ছে ফল ও রবি ফসলের আবাদ

সমকালীন কৃষি ডেস্ক:বগুড়ার নন্দীগ্রামে চলতি বোরো মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও কমেছে আবাদি জমি। তবে এই জমি চলে গেছে উচ্চ মূল্য ফসল আবাদে। উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, এ বছর চলতি বোরো মৌসুমে শুধু নন্দীগ্রাম উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে সর্বমোট ২০ হাজার ৪শ ৬৭ হেক্টর জমি চাষের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। কিন্তু আবাদ হয়েছে ২০ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে।  আর এই জমি থেকে  ১ লাখ ১৯ হাজার মেট্রিক টন ধানের ফলন হবে বলে আশা করা যায় ।

উপজেলা কৃষি অফিসার মোহা. মুশিদুল হক জানান, এ উপজেলার কৃষকরা পরামর্শমত ধান চাষ করেছে । এতে তারা বাম্পার ফলন পাবে। এছাড়াও আবহাওয়া ভালো, রোগ-বালাই পোকামাকড় নেই| বড় ধরনের কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না দেখা দিলে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তবে তিনি বোরো আবাদ কমিয়ে উচ্চ মূল্য ফসল বিশেষ করে আলূ, ডাল, সরিষা, গমের মতো পানি কম প্রয়োজন হয় এমন ফসলের আবাদ বৃদ্ধির ওপর জোর প্রদান করেন।

তিনি আরো জানান গত চার বছরে গমের জমি ৫ হেক্টর হতে ৫০ হেক্টর, সব্জি জমি ৩০ হেক্টর হতে ১৫০ হেক্টর, ডালের জমি ১০ হেক্টর হতে ১৫০ হেক্টর,  ফলের জমি ১০ হেক্টর হতে ৬০ হেক্টরে এসে দাড়িয়েছে। তিনি চলতি মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে আশা করছেন। প্রতি বিঘাতে গড়ে ৫০ টি করে আম্রপালি আমের গাছ লাগানো হয়েছে। বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে এবছর প্রায় ১০০০ টন আম উৎপাদন হতে পারে বলে কৃষি বিভাগ জানান। যার বাজার মূল্য ০৮ কোটি টাকা হতে পারে। বর্তমানে আমের অবস্থা খুব ভাল ও রোগ বালাই তেমন নাই বললেই চলে।
-কৃষি তথ্য সার্ভিসের সৌজন্যে