Monday, 22 January 2018

 

ধানের বাদামী দাগ রোগের (Brown spot) বিস্তারিত

ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান:বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট বাংলাদেশে এ পর্যন্ত মোট ৩২টি রোগ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন এলাকায় এবং বিভিন্ন জাতের ধানে সনাক্ত করেছে। এর মধ্যে ১০ টি মূখ্য রোগ বাঁকী ২২ টি গৌণ। এ রোগগুলি দ্বারা ধানের ফলন শতকরা ১০-১৫ ভাগ কম হয়। রোগগুলোর মধ্যে ভাইরাস জনিত ২ টি, ব্যাকটেরিয়া জনিত ৩ টি, ছত্রাক জনিত ২২ টি, কৃমি জনিত ৫ টি।

কৃষক ভাইদের জন্য ধানের বাদামী দাগ রোগ (Brown spot) সম্পর্কে বিস্তারিত লিখেছেন ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান।

রোগের নাম: বাদামী দাগ রোগ (Brown spot)
রোগের কারণ: বাইপোলারিস ওরাইজি (Bipolaris oryzae) নামক ছত্রাক দ্বারা হয়ে থাকে।
রোগের বিস্তার:

এ রোগটি চারা অবস্থা থেকে যে কোন বয়সের ধান গাছে হতে পারে। তবে চারার বয়স বেশী হলে রোগটির প্রকোপ বেশী দেখা যায়। মাটিতে পুষ্টি উপাদানের অভাব বা পানির অভাব হলে রোগের মাত্রা বেড়ে যায়।

রোগের লক্ষণ:

  • পাতায় প্রথমে তিলের দানার মত ছোট ছোট দাগ পড়ে।
  • দাগগুলি বড় হয়ে মাঝখানে সাদা ও কিনারা বাদামী হয়ে যায়।
  • একাধিক দাগ মিলে বড় দাগ সৃষ্টি হয়ে পাতাটিকে মেরে ফেলতে পারে।
  • ধানের পাতার চেয়ে রোগটি বীজে বেশী দেখা যায়।
  • রোগ আক্রান্ত গাছে অপুষ্ট বীজ হয় ও বাদামী বর্ণ হয়।

রোগের প্রতিকার:

  • সুস্থ্য বীজ বপন করতে হবে।
  • বীজ গরম পানিতে (৫০ ডিগ্রি সেঃ তাপমাত্রায় ৩০ মিনিট ভিজে রাখতে হবে) শোধন করতে হবে।
  • কার্বেন্ডাজিম (অটোস্টিন) অথবা কার্বোক্সিন+থিরাম (প্রোভ্যাক্স ২০০ ডব্লিউপি) প্রতি কেজি বীজে ২.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে শোধন করতে হবে।
  • জৈব সার ব্যবহার করতে হবে।
  • জমিতে সঠিক পরিমাণ নাইট্রোজেন ও পটাশ সার ব্যবহার করলে রোগ কমে যায়।
  • সঠিক পানি ব্যবস্থাপনা করতে হবে।
  • জমিতে রোগ দেখা দিলে কার্বেন্ডাজিম (অটোস্টিন) প্রতি লিটার পানিতে ১.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

=======================
লেখক:- উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব)
মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই
শিবগঞ্জ, বগুড়া।
Mobile No. 01911-762978; 01558-313632; 01673-632486.
E-mail: ;