Thursday, 14 December 2017

 

ধান গাছের খোলপোড়া (Sheath blight) রোগের বিস্তারিত

ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান:ধান গাছের রোগ সম্পর্কে ধারনা না থাকলে কৃষকরা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে পারেন। ধান গাছের খোলপোড়া (Sheath blight) রোগটি বেশি তাপমাত্রা ও আর্দ্রতায় বেশী হয়। কাজেই এসময়ে এ রোগটি সম্পর্কে কৃষকদের বেশিবশি সচেতন থাকতে। ঘনঘন বৃষ্টিপাত ও জমিতে পানি জমে থাকলে এ রোগের প্রকোপ বাড়ে।। এ রোগ সম্পর্কে ধারনা, দমন ও করণীয় সম্পর্কে লিখেছেন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান।

রোগের নাম: খোলপোড়া রোগ (Sheath blight)
রোগের কারণ: রাইজোকটোনিয়া সোলানী (Rhizoctonia solani) নামক ছত্রাক দ্বারা হয়ে থাকে।

রোগের বিস্তার:
আউশ ও আমন মৌসুমে এ রোগটি বেশী হয়। মাটি ও পরিত্যক্ত খড় কুটায় ছত্রাক থাকে। বেশি তাপমাত্রা ও আর্দ্রতায় এ রোগের প্রকোপ বেশী হয়। অতিরিক্ত পরিমানে ইউরিয়া সারের ব্যবহার করলে। ঘনঘন বৃষ্টিপাত ও জমিতে পানি জমে থাকলে।
রোগের লক্ষণ:

  • পানির স্তর বরাবর খোলের উপর পানি ভেজা সবুজ রং-এর দাগ পড়ে।
  • দাগগুলির কেন্দ্র ধুসর এবং প্রান্তে বাদামী রং ধারণ করে।
  • দাগগুলি একত্র হয়ে পাতার খোল ও পাতায় ছড়িয়ে পড়ে যা দেখতে গোখরা সাপের মত মনে হয়।
  • আক্রমন বেশী হলে ক্ষেতের মাঝে মাঝে আগুনে পুড়ে যাওয়ার মত দেখায়

রোগের প্রতিকার:

  • রোগ সহনশীল জাত ব্যবহার করতে হবে।
  • সঠিক দূরত্বে চারা রোপন করতে হবে (২০ - ২৫ সেমি দূরে)।
  • আক্রান্ত জমির খড়কুটা জমিতে পুড়িয়ে ফেলতে হবে।
  • সুষম সারের ব্যবহার করতে হবে।
  • অতিরিক্ত ইউরিয়া সার ব্যবহার পরিহার করতে হবে।
  • রোগ দেখা দেয়ার পর বিঘা প্রতি ৫ কেজি পটাশ সার উপরি প্রয়োগ করতে হবে।
  • প্রোপিকোনাজোল (টিল্ট ২৫০ ইসি) বা টেবুকোনাজল (ফলিকুর ২৫০ ইসি) বা হেক্সাকোনাজল (কনটাফ ৫ ইসি) প্রতি লিটার পানিতে ১ মিলি হারে মিশিয়ে ১০ দিন পর পর ৩-৪ বার স্প্রে করতে হবে।

=========================
লেখক:- উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব)
মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই
শিবগঞ্জ, বগুড়া।
Mobile No. 01911-762978; 01558-313632; 01673-632486.
E-mail: ;