Thursday, 14 December 2017

 

ধান গাছে গোড়া পঁচা ও বাকানী রোগের বিস্তারিত

ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান: ধান গাছের গোড়া পঁচা ও বাকানী রোগের আক্রমণের ফলে ফসলে শতকরা ৩০ ভাগ পর্যন্ত ক্ষতি হতে পারে। ফলে কৃষকদের আর্থিক ক্ষতির বিষয়টি মাথায় রেখে এ রোগ সম্পর্কে সজাগ থাকা প্রয়োজন বলে মনে করেন ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান। ফিউজারিয়াম মোনিলিফরমি (Fusarium moniliforme) নামক ছত্রাক দ্বারা হয়ে থাকে। এ ছত্রাক জিবেরিলিন নামক এক ধরনের হরমোন নিঃস্বরণ করে যা গাছের দ্রুত অঙ্গজ বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। তাই রোগ সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা দিয়েছেন এ বিজ্ঞানী।

রোগের বিস্তার: বীজ বাকানি রোগের অন্যতম বাহক। মাটি, পানি, বাতাসের মাধ্যমেও এ রোগের জীবাণু এক জমি হতে অন্য জমিতে ছড়ায়। মাটিতে আগে থেকেই এ রোগের জীবাণু থাকলে ধান গাছে এ রোগ হয়। অতিরিক্ত ইউরিয়া সারের প্রয়োগে এ রোগের আক্রামণ বাড়তে থাকে। উচ্চ তাপমাত্রায়ও (৩০-৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস) এ রোগের আক্রমণ বেশী হয়।

রোগের লক্ষণ:

  • বাকানি রোগ ধান গাছের চারা অবস্থা থেকে শুরু করে থোড় আসা পর্যন্ত যে কোন সময়ে হতে পারে। তবে চারা অবস্থায় হলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়ে থাকে।
  • আক্রাস্ত ধানের চারা সাধারণ চারার চেয়ে দিগুণ লম্বা হয়ে ফ্যাকাসে হয়ে যায়।
  • আক্রান্ত চারার পাতা হালকা সবুজ রঙের ও দুর্বল মনে হয়।
  • আক্রান্ত কুশি চিকন ও লিকলিকে হয়ে যায়।
  • কোন কোন সময় গাছের গোড়ার দিকে গিঁট হতে শিকড় বের হতে দেখা যায়।
  • গাছের গোড়া পঁচে যায় এবং ধীরে ধীরে আক্রান্ত গাছ শুকিয়ে মরে যায়।
  • চারা অবস্থায় বা রোপনের পরপরই এ রোগে আক্রান্ত হলে আক্রান্ত গাছে কোন ফলন হয় না।
  • তবে গর্ভাবস্থায় এ রোগ হলে চিটা এবং অপুষ্ট ধান বেশি হয় এবং শীষ অনেক ছোট হয়।

রোগের প্রতিকার:

  • রোগ সহনশীল ধানের জাত চাষ করতে হবে।
  • সূস্থ বীজের ব্যবহার করতে হবে।
  • খড়কুটা জমিতে পুড়িয়ে ফেলতে হবে।
  • বীজতলা হতে চারা তোলার সময় রোগাক্রান্ত চারা বেছে ফেলে দিতে হবে।
  • আক্রান্ত গাছটি ফুল আসার আগেই তুলে ফেলতে হবে।
  • চারা রোপনের পর এ রোগ দেখা দিলে আক্রান্ত গাছ তুলে পুড়িয়ে নষ্ট করে দিতে হবে।
  • সুষম মাত্রায় ইউরিয়া সার ব্যবহার করেও এ রোগের প্রকোপ কমানো যেতে পারে।
  • গোড়া পঁচা রোগ দেখা দেয়ার সাথে সাথে জমির পানি শুকিয়ে ফেলতে হবে।
  • কার্বেনডাজিম (অটোস্টিন, নোইন, ইভাজিম) নামক ঔষধ এক লিটার পানিতে ২.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে বীজ ১২ ঘন্টা ভিজিয়ে রেখে শোধন করতে হবে।

=========================
লেখক:- উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব)
মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই
শিবগঞ্জ, বগুড়া।
Mobile No. 01911-762978; 01558-313632; 01673-632486.
E-mail: ;