Tuesday, 17 July 2018

 

গোলাপের ডগা শুকানো (Die back) রোগ

ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান:ফুল সৌন্দর্য্যরে প্রতিক। পৃথিবীর সব দেশেই বিভিন্ন জাতের, বিভিন্ন রংয়ের ফুলের চাষ হয়ে থাকে। আমাদের দেশেও তেমনি প্রায় সব ঋতুতেই ফুল পাওয়া যায়, তবে শীত মৌসুমেই সব চেয়ে বেশী ফুল পাওয়া যায়।গাছের বিভিন্ন ধরনের রোগ সম্পর্কে সচেতন করতে নিয়মিত লিখে থাকেন বিশিষ্ট এ উদ্ভিদ বিজ্ঞানী। এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম পাঠকদের জন্য আজ থাকছে গোলাপের ডগা শুকানো (Die back) রোগ ও তার প্রতিকারের বিস্তারিত।

ডিপ্লোডিয়া রোসেরাম (Diplodia rosarum) নামক ছত্রাক দ্বারা সাধারণত: এ রোগ হয়ে থাকে। অনেক সময় কোলেটোট্রিকাম এসপি. (Colletorichum sp.) নামক ছত্রাক দ্বারাও এ রোগটি সংঘটিত হতে পারে। পূরাতন বাগানে এ রোগের প্রকোপ বেশী। ছত্রাকটি গোলাপের পরিচর্যা বা ডাল ছাঁটার সময় সিকেচারের সাহায্য ছড়ায়। আর্দ্র আবহাওয়াতে প্রচুর পিকনিডিয়া ও স্পোর তৈরী হয় বলে রোগও বাড়ে।

রোগের লক্ষণ:

  • রোগাক্রান্ত গাছের কঁচি ডাল আগা থেকে শুকাতে শুরু করে।
  • শুকানোটা ধীরে ধীরে ক্রমশ: নীচের দিকে নামতে থাকে।
  • শুকানো অংশটা কালচে বাদামী রংগের পচা ছালযুক্ত হয়।
  • এটা ফুলের বোঁটা, প্রশাখা থেকে শাখা, মূল কান্ড হয়ে পুরো গাছ ছেয়ে ফেলে।
  • গোড়ায় পৌঁছালে পূরো গাছটি মরে যায়।
  • রোগাক্রান্ত গাছে কলি ও ফুল হয় না।

রোগের প্রতিকার:

  • আক্রান্ত ডাল কেটে পুড়ে ফেলতে হবে।
  • ডাল কাটার সময় কাল অংশসহ কেটে বাদ দিতে হবে
  • কাটা ডালের মাথায় ৪ ভাগ ক্যালসিয়াম কার্বোনেট, ৪ ভাগ রেড লেড ও ৫ ভাগ তিসির তেল মিশিয়ে পেস্ট তৈরী করে লাগাতে হবে।
  • ডিপ্লোডিয়া দ্বারা আক্রান্ত হলে কার্বেন্ডাজিম (যেমন-অটোস্টিন) প্রতি লিটার পানিতে ১.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে গাছে ৭-১০ দিন পর পর ২-৩ বার স্প্রে করতে হবে।
  • কোলেটোট্রিকাম দ্বারা আক্রান্ত হলে প্রোপিকোনাজোল (যেমন-টিল্ট ২৫০ ইসি) ১ লিটার পানিতে ০.৫ মিলি হারে  মিশিয়ে ৭-১০ দিন পর পর ২-৩ বার স্প্রে করতে হবে।

==================================
লেখক:-উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব)
মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই
শিবগঞ্জ, বগুড়া।
Mobile No. 01911-762978; 01558-313632; 01673-632486.
E-mail: ;