Monday, 23 July 2018

 

পানের ঢলে পড়া (Wilt) রোগের বিস্তারিত

ড. কে, এম, খালেকুজ্জামান:অর্থকরী ফসলের মধ্যে কৃষি অর্থনীতিতে পানের একটি উল্লেখযোগ্য অবস্থান রয়েছে। এজন্য পানচাষীরা পানের বরজকে অত্যন্ত সুরক্ষিত রাখার চেষ্টা করে থাকেন। পান যেমন অর্থ আনতে পারে আবার রোগ-বালাই লাগলে কৃষকের বিস্তর ক্ষতির আশংকাও থেকে যায়।

এসব দিক বিবেচনায় আজ এগ্রিলাইফ২৪ ডটকমের সম্মানিত পাঠকদের জন্য থাকছে পানের ঢলে পড়া (Wilt) রোগের আলোচনা।ফিউজারিয়াম অক্সিস্পোরাম (Fusarium oxysporum) নামক ছত্রাকের আক্রমনে এ রোগ হয়ে থাকে। ছত্রাকগুলো প্রধানত মাটি বাহিত এবং অন্যান্য শস্য আক্রমণ করে এবং পানি সেচের মাধ্যমে আক্রান্ত ফসলের জমি হতে সুস্থ ফসলের মাঠে বিস্তার লাভ করে।

রোগের লক্ষণঃ

  • গাছের গোড়ায় আক্রমণ করে।
  • গাছের উপরের পাতা হলুদ হয়ে যায়
  • কান্ডের ভাস্কুলার টিস্যু আক্রমণ করে। গোড়ার দিকে কান্ড লম্বালম্বিভাবে ফাটালে ভিতরে দাগ দেখা যায়
  • পরে গাছ ঢলে পড়ে
  • আক্রমণ বেশী হলে গাছ মরে যায়।

রোগের প্রতিকার:

  • রোগাক্রান্ত গাছ তুলে এবং ফসল সংগ্রহের পর পরিত্যক্ত অংশ পুড়িয়ে ফেলতে হবে।
  • লতা রোপনের পূর্বে প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে কার্বেন্ডাজিম (যেমন-অটোস্টিন) অথবা কার্বোক্সিন + থিরাম (যেমন-প্রোভ্যাক্স ২০০ ডব্লিউপি) মিশিয়ে লতা শোধন করে রোপন করতে হবে
  • পান গাছসমূহের গোড়ায় মাটি দিয়ে একটু উচু করে রাখতে হবে যেন বৃষ্টি বা সেচের পানি জমে না থাকে
  • গাছের গোড়ার চতুর্দিকের পৃষ্ঠের মাটি নেড়ে শুষ্ক করে দিলে এ রোগ অনেকাংশে দমন হয়
  • ট্রাইকোডারমা কমপোস্ট সার প্রতি গাছে ৫ গ্রাম হারে জমিতে প্রয়োগ করতে হবে
  • বরজে রোগ দেখা দিলে কার্বেন্ডাজিম (যেমন-অটোস্টিন) অথবা কার্বোক্সিন + থিরাম (যেমন-প্রোভ্যাক্স ২০০ ডব্লিউপি) প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে গাছের গোড়ায় মাটিতে স্প্রে করতে হবে।

======================================
লেখক:-উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব)
মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই
শিবগঞ্জ, বগুড়া।
Mobile No. 01911-762978; 01558-313632; 01673-632486.
E-mail: ;