Monday, 20 November 2017

 

গাজীপু‌রে এক‌যো‌গে আ‌লোক ফাঁদ স্থাপন

ফরহাদ আহমদ,গাজীপুরঃগাজীপুর জেলার আয়োজনে জেলার সকল ইউনিয়নের ১৪০টি ব্লকে একযোগে রোপা আমন ফসলে ক্ষতিকর পোকা-মাকড়ের উপস্থিতি নির্ণয়ে আইপিএম পদ্ধতির আলোক ফাঁদ প্রযুক্তি বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এছাড়া রোপাআমন ধানের পাতা মোড়ানো, বাদামী গাছ ফড়িং, মাজরা পোকা সহ ক্ষতিকর পোকা-মাকড় দমনে ও রোপা আমন ধানের খোল পোড়া, পাতা পোড়া, ব্লাস্ট রোগ দমনে কৃষকদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

রোপা আমনের উৎপাদন বৃদ্ধিতে কৃষি বিভাগ দিনের বেলায় নিয়মিত মাঠ পরিদর্শণের পাশাপাশি বিশেষ কর্মসূচি হিসেবে জেলার ১৪০টি ব্লকের রোপা আমনের ধানের জমির আইলের পাশে সূর্যাস্তের পরপরই কৃষকদের নিয়ে চার্জার বাতি, বৈদ্যুতিক বালব, হারিকেন অথবা হ্যাজাকের সাহায্যে একটি আলোর ফাঁদ তৈরী করা হয়। আলোর ফাঁদের প্রায় ১ ফুট নিচে একটি পানির পাত্রে কেরোসিন অথবা সাবান মিশ্রিত পানি রেখে দিলে আলো আকর্ষনকারী মাজরা, পাতা মোড়ানো, লেদা পোকার পূর্ণাঙ্গ মথ, বাদামী গাছ ফড়িংসহ ক্ষতিকর পতঙ্গসমূহ আলোর দিকে আকৃষ্ট হয়ে ছুটে আলোর সাথে ধাক্কা খেয়ে নিচের রাখা পানির পাত্রের মধ্যে পড়ে মারা যায়।

এছাড়াও চলতি মৌসুমে আমন ধানের বন্ধু পোকা, ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি গণনা, ক্ষতিকর পোকামাকড় দমণে করণীয় নির্ধারণসহ কৃষকদের পরামর্শ প্রদান সহ লিফলেট বিতরণের কর্মকান্ড অব্যাহত আছে।

এ উপলক্ষে স্থানীয় কৃষদের সাথে আলোচনা করেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ মোঃজসিম উদ্দিন। এসময় অন্যানের মধ্যে অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য), অতিরিক্ত উপপরিচালক (উদ্যান), উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা, কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা, উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা-সহ স্থানীয় কৃষকগন উপস্থিত ছিলেন।