Thursday, 14 December 2017

 

নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস্ (এনিম্যাল হেলথ্ ডিভিশন) এর বার্ষিক ডিলার সম্মেলন অনুষ্ঠিত

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:ব্যাপক উৎসাহ আর নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস্ (এনিম্যাল হেলথ্ ডিভিশন) এর বার্ষিক ডিলার সম্মেলন-২০১৬। ১৮ এপ্রিল মঙ্গলবার রাজধানীর ফার্মগেটস্থ কৃষিবিদ ইন্সটিউিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ ডিলার সম্মেলনে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত ডিলার, পোলট্রি-ডেইরি কনসালট্যান্ট কোম্পানীর বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তবৃন্দ ও আমন্ত্রিত অতিথি মিলে প্রায় ৭০০ জন অংশগ্রহন করেন।

সম্মেলনের শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস্ (এনিম্যাল হেলথ্ ডিভিশন) এর নির্বাহী পরিচালক মি:অখিল চন্দ্র ভৌমিক। এরপর ব্যবসায়িক সফলতার স্বীকৃতিস্বরূপ সফল ডিলারদের পুরস্কৃত করে কোম্পানিটি। এছাড়াও মাঠ পর্যায়ে কর্মরত কোম্পানির কর্মকর্তাদের পুরস্কার প্রদান করা হয়।

পরবর্ত্তীতে পোলট্রি খামার ব্যবস্থপনায় সমসাময়িক ইস্যুর উপর আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. প্রিয়মোহন দাস, বিশিষ্ট পোলট্রি কনসালট্যান্ট ডা. এন সি বণিক এবং সিভিএইচ এর চীফ ভেটেরিনারি অফিসার ডাঃ আব্দুল হালিম।

আলোচনায় অংশ নিয়ে ড. প্রিয়মোহন পোলট্রি খামার ব্যবস্থপনায় সমসাময়িক ইস্যুর উপর বিস্তারিত কারিগরী তথ্যাদি সুন্দর ও সাবলীলভাবে তুলে ধরেন। এসময় তিনি ব্রয়লার ও লেয়ার শেড, ব্রুডিং, ভ্যাক্সিন, চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা সহ সমসাময়িক নানা বিষয় বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেন। খামার সঠিকভাবে পরিচালনা করতে হলে এসব বিষয়গুলি গুরুত্ব সহকারে বিবেচনার কথা বলেন তিনি।

ড. প্রিয়মোহন বিশেষভাবে উল্লেখ করে বলেন, পোল্ট্রি খামারকে লাভজনক পর্যায়ে নিতে হলে এগুলো সম্পর্কে কারিগরী দক্ষতা অর্জন করা প্রয়োজন। এছাড়া সঠিকভাবে দক্ষ পোল্ট্রি বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে পোল্ট্রি খামার ব্যবস্থাপনাগুলি মেনে চলার তাগিদ দেন তিনি। খামারীদের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর পাশাপাশি তাদের তাদেরকে মানসিকতার পরিবর্তন করার কথা বলেন তিনি। এর ফলে ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রে পরিবর্তন হবে বলে মনে করেন গুণী এ শিক্ষক।।

সম্মেলনে বিশিষ্ট পোল্ট্রি কনসালট্যান্ট ডাঃ এন সি বণিক বলেন, পোল্ট্রি শিল্পে বিপ্লব ঘটাতে হলে খামারীদের কারিগরী জ্ঞান অর্জন করতে হবে। পরিবেশ, জলবায়ূসহ নানা কারনে রোগ-বালাইয়েরও পরিবর্তন হয় কাজেই তথ্য সহকারে এসব বিবেচনায় খামার পরিচালনা করার উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। খামারে বায়োসিকিউরিটির কঠোরভাবে মেনে চলার কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন ডাঃ এন সি বণিক। তিনি আরো বলেন, আধুনিক ও যুগোপোযোগী কারিগরী ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে খামার পরিচালনায় খামারীদেরকে অধিক মনোযোগী হতে হবে। এসময় তিনি আগতদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

চিফ ভেটেরিনারি অফিসার ডাঃ আব্দুল হালিম বলেন, নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস্ এর এধরনের বিশেষ করে পুরস্কার প্রদান করার আয়োজন নিঃসন্দেহে ডিলারদের জন্য উৎসাহব্যঞ্জক। তিনি পোল্ট্রি খামার পরিচালনায় খাদ্য ও আলোক ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এছাড়া গরমকালে হিট স্ট্রোকে করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করেন। এজন্য তিনি খামারে তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা নিয়ন্ত্রনের উপর জোর দেন।

আলোচনার শেষ পর্যায়ে প্রফেসর ড. প্রিয়মোহন দাস পোল্ট্রি খামার ব্যবস্থাপনা বিষয়ক বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর দেন।

সভাপতির বক্তব্যে নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর জনাব আলী রেজা বকস্ বলেন, দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে প্রাণিসম্পদ ব্যাপক ভূমিকা রাখছে। আর এ সেক্টরে নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস জড়িত থাকতে পেরে তারা গর্বিত। তিনি বলেন, শুরু থেকে নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস মানসম্পন্ন পণ্য বাজারজাত করে আসছে।  আগামীতে তারা আরো উন্নত সেবা দিতে চান এজন্য উপস্থিত সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। এছাড়াও গুণগতমানসম্পন্ন প্রোডাক্ট দেশের গন্ডি পেরিয়ে বর্হিবিশ্বেও সুনামের সাথে রপ্তানি হচ্ছে বলেও সম্মেলনে জানান জনাব আলী রেজা বকস্।

সবশেষে নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস্ (এনিম্যাল হেলথ্ ডিভিশন) এর সিনিয়র ন্যাশনাল সেলস্ ম্যানেজার কৃষিবিদ জনাব আফতাব আলী উপস্থিত সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে সকলকে মধ্যাহ্ন ভোজে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানান।

সম্মেলনে ডিলারদের জন্য ছিল আকর্ষনীয় র‌্যাফেল ড্র। যেখানে মোট ১৫ জন জিতে নেন আকর্ষনীয় পুরস্কার।