Monday, 23 July 2018

 

পোল্ট্রিতে বাস্তবমুখী কারিগরি সহায়তা দিতে চান ডাঃ রইস

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:কর্মজীবনে এনিম্যাল হেলথ সেক্টরে ৩১ বছর একটি বহুজাতিক কোম্পানীতে সুনামের সঙ্গে তাঁর মেধা আর প্রজ্ঞাকে কাজে লাগিয়ে রেখেছেন অনবদ্য অবদান। আগামী ১ মার্চ থেকে শুরু করতে যাচ্ছেন পেশাগত জীবনের নতুন অধ্যায়। নিজস্ব চেম্বার থেকে এবং প্রয়োজনে ফার্ম/ফিড মিল পরিদর্শনের মাধ্যমে কারিগরী সহায়তা দিবেন।

১৬ ফেব্রুয়ারী রাজধানী ধানমন্ডির একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে পোল্ট্রি মিডিয়া সংশ্লিস্টদের কাছে এমনটাই জানালেন ডা. মোঃ রইস উদ্দিন মিয়া। পোল্ট্রি ফার্ম ও ফিড মিলে বাস্তবমুখী কারিগরী সহায়তা প্রদানের লক্ষে তিনি ফার্ম এবং ফিড মিলে কারিগরী দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি, সুপারভাইজার এবং পোল্ট্রি শিল্প সংশ্লিস্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের কমকর্তাগণকে বাংলা অথবা ইংরেজী মাধ্যমে কারিগরী সহায়তার ব্যবস্থা করবেন বলে মত বিনিময় অনুষ্ঠানে জানান এ সেক্টরের অতি পরিচিত মুখ ডা. রইস।

ডা. মোঃ রইস উদ্দিন মিয়া মাঠ পর্যায়ে এনিম্যাল হেলথ সেক্টরে সুদীর্ঘ ৩১ বছরের কাজকর্মে রেখেছেন তার মেধার স্বাক্ষর। মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানীতে চাকুরীর শুরুর দিকে ৯ বছর মার্কেটিং অফিসার হিসেবে কাজ করেন। তারপর ৪ বছর রিজিওনাল সেলস্ ম্যানেজার হিসেবে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব সফলভাবে পালন করেন। চাকুরী জীবন হতে অবসর গ্রহণের পূর্বে এক নাগাড়ে ১৮ বছর ম্যানেজার টেকনিক্যাল পদে কাজ করে তাঁর অভিজ্ঞতার ঝুলিকে সমৃদ্ধ করেছেন অভিজ্ঞ এ ভেটেরিনারিয়ান। এসময় তিনি টেকনিক্যাল ম্যানেজার হিসেবে সুদীর্ঘ ১৮ বছরে দেশের নানা প্রান্তে গড়ে ওঠা ফিড মিল, বৃহৎ কমার্শিয়াল পোলট্রি ও ব্রিডার ফার্মগুলিতে তিনি সেবা প্রদান করেছেন।

কর্মজীবনে সারা দেশে প্রায় ১০০০ এর অধিক সেমিনার করে এ শিল্পে জড়িতদের মাঝে আস্থার একটি নাম ডা. রইস। এ সব সেমিনারে তিনি ২০০-এর অধিক কারিগরী পেপার উপস্থাপন করেন। পোল্ট্রি খামার ব্যবস্থাপনা থেকে রোগ-ব্যাধি নিয়ন্ত্রণে অভিজ্ঞ ডা. রইস দেশের পাশাপাশি বিদেশে কারিগরী ট্রেনিং প্রাপ্ত হয়ে তার দক্ষতাকে তুলে ধরে খামারীদের মাঝে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেন।

ডা. রইস ১৯৫৮ সালের ২ জানুয়ারী রাজবাড়ি জেলার পাংশা উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। এসএসসি ও এইচএসসিতে কৃতিত্বের সাথে উর্ত্তীর্ণ হয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮৩ সালে (অনুষ্ঠিত-১৯৮৫)  ডিভিএম ডিগ্রী অর্জন করেন। এরপর থেকে শুরু হয় তার কর্মজীবন। পেশাগত জীবনের ফাকে তিনি MBA ডিগ্রিও অর্জন করেন।

কর্মজীবনে তিনি ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালয়োশিয়া, থাইল্যান্ড, ভারত ভ্রমণ করেন। এসব দেশে তিনি দক্ষতার সাথে লেয়ার ফার্মের হাউজিং, লাইটিং ম্যানেজমেন্ট, ভ্যাক্সিনেশন প্রোগ্রাম, কক্সিডিওসিস ম্যানেজমেন্ট, বায়োসিকিউটরিটি, ব্রিডার ফার্মের ব্যবস্থাপনা, ফিড ম্যানেজমেন্টের যাবতীয় বিষয়গুলি দক্ষতার সাথে আয়ত্ব করেন।

বর্তমানে তিনি একজন পোলট্রি কনসালট্যান্ট হিসেবে দেশের ব্রিডার ফার্ম, ফিড মিলগুলিতে কাজ করার আগ্রহের কথা জানালেন আজকের মত বিনিময় সভায়।

এ বিশেষজ্ঞের সহায়তা নিতে চাইলে যে কেউ -ডা. মোঃ রইস উদ্দিন মিয়া। মোবাইলঃ ০১৭১১-৫৪১-৭৮৮ এ নম্বরে যোগাযোগ করতে পারবেন।