Thursday, 23 November 2017

 

পোল্ট্রিতে বিশ্বের সকল দেশই বাংলাদেশকে এখন বড় মার্কেট মনে করে-সালাউদ্দিন সাচ্চু

নিজস্ব প্রতিবেদক:বর্তমানে বিশ্বের প্রায় সকল দেশই বাংলাদেশকে পোল্ট্রি-ফিস সহ প্রাণিসম্পদ সেক্টরকে বেশ বিবেচনায় রাখে এবং বাংলাদেশের সাথে ব্যবসা করতে তারা খুবই আগ্রহী। বাংলাদেশকে এখন বিশ্বের সকল দেশই পোল্ট্রিতে বড় মার্কেট মনে করে। কারন প্রবৃদ্ধির দিক দিয়ে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে। সম্প্রতি জার্মানিতে অনুষ্ঠিত ইউরো টায়ার পরিদর্শনের অনুভূতি এগ্রিলাইফ২৪ ডটকমের কাছে এমনভাবেই ব্যক্ত করলেন আদনান এগ্রোর ম্যানেজিং ডিরেক্টর জনাব সালাউদ্দিন সাচ্চু।

তিনি বলেন ইউরোপে যাওয়া কষ্টসাধ্য হলেও বাংলাদেশ থেকে এবারের EuroTier 2016’ তে প্রায় ৫০ জনের মতো প্রতিনিধি অংশগ্রহন করে যা ছিল চোখে পড়ার মতো। সেখানে বেশ বড় পরিসরে ২৩টি বড় বড় হলে নামি-দামি কোম্পানির অংশগ্রহনে এবারের EuroTier টি বেশ জমে উঠেছিল। এত বড় পরিসরের আয়োজন মাত্র ৩দিনে পুরোটা দেখা সম্ভব নয়। তারপরেও সর্বাধুনিক প্রযুক্তির মেশিনারিজ, পণ্য এবং সায়েন্টিফিক সেমিনার থেকে তারা সর্বোচ্চ প্রাপ্তি নেয়ার চেষ্টা করেছেন।

জনাব সালাউদ্দিন সাচ্চু বলেন, দেশের পোলট্রি-ফিস সেক্টরে মাইক্রো-মিনি এবং বৃহৎ আকারে কোনো শিল্প স্থাপন করতে চাইলে তাঁর সব কিছুই বেশ গুরুত্ব সহকারে উপস্থাপন করেছিল EuroTier 2016’ এ অংশগ্রহনকারী কোম্পানীগুলি। প্রতি ঘন্টায় ১ মেট্রিক টন ক্যাপাসিটি থেকে ৬০ মেট্রিক টন ক্যাপাসিটির ফিড মিল মেশিনারিজের উপস্থিতি যেমন ছিল তেমনি প্রতি সপ্তাহে ২০ হাজার চিকস্ উৎপাদন ক্যাপাসিটি থেকে ১লক্ষ/২লক্ষ বা তদুর্ধ ক্যাপাসিটির অত্যাধুনিক হ্যাচারি মেশিনারিজের প্রদর্শন ছিল চোখে পড়ার মতো।

প্রায় ২০টি দেশ থেকে আগত ভিজিটরদের সাথে এ সেক্টর নিয়ে  বেশ খোলামেলা আলাপ-আলোচনা করেছে জনাব সালাউদ্দিন। তিনি বলেন বিদেশী প্রায় সকলেই একবাক্যে স্বীকার করেন বাংলাদেশ এখন পোল্ট্রিতে বেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তারা যে কেবল পোল্ট্রি নিয়ে ভাবে তা কিন্তু নয়, বাংলাদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য-সংস্কৃতি-মুক্তিযুদ্ধ থেকে, স্বাধীনতা এসব নিয়েও তাদের রয়েছে আগ্রহ। এপ্রসঙ্গে তিনি সফরকারী এক টার্কিস ভদ্রলোকের সাথে আলাপের সূত্র ধরে বললেন তুরস্ক বাংলাদেশের মহান ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা এবং বাংলাদেশের পটভূমি, আজকের অর্জন সবকিছুই সম্পর্কে বেশ ওয়াকিবহাল। সকলেই বাংলাদেশ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে বেশ আগ্রহী বলে মনে হয়েছে তার কাছে। কারণ বাংলাদেশের কৃষির যে বৈপ্লবিক অর্জন তা নিয়ে তাদের রয়েছে ব্যাপক কৌতুহল।

তিনি বাংলাদেশের ফিড সমন্ধে অনেক দেশের ভিজিটরদের সাথে কথা বলেছেন। তিনি জানান বাংলাদেশ ১০০% এন্টিবায়োটিক মুক্ত উন্নত ও নিরাপদ ফিড তৈরি করে আসছে যেটি অনেক উন্নত দেশেও অনেক সময় সম্ভবপর হয়ে ওঠেনা। সেদিক দিয়ে ফিড তৈরিতে বাংলাদেশ অন্যদের চেয়ে বেশ এগিয়ে। এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন ফিড উৎপাদনে বাংলাদেশ ইউরোপীয়ান ষ্টান্ডার্ড ফলো করে থাকে।

জার্মানী সফরের সময় পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ ফিড এডিটিভস্ এবং প্রাণিপুষ্টি সামগ্রী উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জার্মানীর Biochem এর বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জনাব সালাউদ্দিন সাচ্চু বলেন Biochem এর R&D, LAB এবং Manufacturing plant অত্যন্ত আধুনিক এবং সর্বাধুনিক প্রযুক্তির। উৎপাদনের প্রতিটি পর্যায়ে তাদের গবেষণা এবং ও অন্যান্য প্রক্রিয়া বিশেষ উল্লেখ করার মতো। তাদের "Feed Safety for Food Safety" শ্লোগানটি তার কাছে অত্যন্ত ভালো এবং যুগোপযোগী মনে হয়েছে। কারণ হিসেবে তিনি বলেন ফিডকে নিরাপদ করে তৈরী করলে মানুষের জন্য খাবারটিও নিরাপদ হয়ে যাবে এবং বাংলাদেশের সকলেই এখন অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিরাপদ খাদ্য ভোক্তাদের মাঝে তুলে দিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

দেশের প্রাণিসম্পদ সেক্টরে জড়িত সকলেই এধরনে সেমিনার সিম্পোজিয়ামে অংশগ্রহনের মধ্যে দিয়ে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয়ে শিল্প গড়ে তোলার মাধ্যমে  প্রাণিসম্পদ সেক্টরকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে এমনটিই আশা করেন আদনান এগ্রোর ম্যানেজিং ডিরেক্টর জনাব সালাউদ্দিন সাচ্চু।