Friday, 24 November 2017

 

পাটের দাম মণপ্রতি ২৫০০ টাকা নির্ধারণের দাবীতে ঝিনাইদহে মানববন্ধন

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম ডেস্ক:আজ ২২ আগস্ট মঙ্গলবার, পাটের মণপ্রতি মূল্য ২৫০০ টাকা নির্ধারণের দাবিতে ঝিনাইদহ শহরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উন্নয়ন ধারার সহযোগিতায় ঝিনাইদহ ও মাগুরা অঞ্চলের স্বাধীন কৃষক সংগঠনের উদ্যোগে এবং শতাধিক পাটচাষীর সক্রিয় অংশগ্রহণে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

চলতি বছর পাটের দাম খুব কম থাকায় পাটচাষীরা চরমভাবে হতাশ। কৃষিপণ্যের মূল্য নির্ধারণের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কর্তৃক ব্যবহৃত ফরমেটে ঝিনাইদহ ও মাগুরা অঞ্চলের পাটচাষীদের তথ্য জরিপ ও বিশ্লেষণের ভিত্তিতে এবার পাটের মণপ্রতি উৎপাদন খরচ পড়েছে গড়ে ২,৩৩২ টাকা। কৃষকের জমির লিজমূল্য, নিজস্ব পারিবারিক শ্রম এবং চলতি মূলধনের সুদ হিসেবের মধ্যে ধরা হয়েছে যা কৃষকগণ কখনও ধরেন না। এগুলো বাদ দিলেও কৃষকের হিসেব মতেই উৎপাদন ব্যয় হযেছে গড়ে মণপ্রতি ১,৭৮৬ টাকা। কিন্তু বর্তমানে বাজারে পাটের মূল্য মণপ্রতি ১,৫০০ টাকারও কম যা কৃষককে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে এবং আগামীতে পাট চাষে কৃষক আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে যা দেশের কৃষির স্থায়িত্বশীলতা এবং অর্থনীতির অন্তরায় হবে। এমতাবস্থায়, পাটের মূল্য ২৫০০ টাকা নির্ধারণের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানায় ঝিনাইদহ ও মাগুরা জেলা স্বাধীন কৃষক সংগঠন।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন ঝিনাইদহ সদর, শৈলকুপা, ও মাগুরা সদর উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নের পাটচাষী কৃষক-কৃষাণী ও কৃষক নেতা-নেতৃগণ। কৃষকের এই ন্যায্য দাবীর প্রতি সংহতি জানিয়ে বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সংবাদকর্মী এবং উন্নয়নকর্মীগণও মানব বন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। স্বাধীন কৃষক সংগঠনের এই ন্যায্য দাবীর প্রতি ইতোমধ্যে সংহতি জানিয়েছে কেন্দ্রিয় কৃষক মৈত্রী ও খাদ্য নিরাপত্তা নেটওয়ার্ক (খানি) বাংলাদেশ।

পাটের মণপ্রতি মূল্য ২৫০০ টাকা নির্ধারণের দাবীটি সংশ্লিষ্ট নীতিনির্ধারক মহলের কাছে তুলে ধরার লক্ষ্যে বক্তব্য দেন মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা, ঝিনাইদহ-এর সভাপতি জনাব আমিনুর রহমান টুকু, উন্নয়ন ধারার নির্বাহী পরিচালক জনাব মো: শহীদুল ইসলাম, স্বাধীন কৃষক সংগঠনের সভাপতি মো: রুবায়েত হোসেন মোল্লা, কৃষকনেতা আক্কাস আলী, উন্নয়ন কর্মী হায়দার আলী এবং আসাদুজ্জামান।অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, দেশের খাদ্য নিরাপত্তা এবং অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে কৃষকের ভুমিকা অপরিসীম।কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের লাভজনক মূল্য না পেলে মধ্যম আয়ের দেশের সুফল কৃষকের ঘরে পৌছবেনা।-সংবাদ বিজ্ঞপ্তি