Thursday, 23 November 2017

 

রাবিতে জনসংখ্যা, স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও টেকসই উন্নয়ন বিষয়ক সম্মেলন শুরু

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পপুলেশন সায়েন্স এন্ড হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট বিভাগ আয়োজিত জনসংখ্যা, স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও টেকসই উন্নয়ন বিষয়ক এক আন্তর্জাতিক সম্মেলন আজ শনিবার থেকে শুরু হয়েছে। এদিন দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় সিনেট ভবনে ‘পপুলেশন, হেলথ্, এনভায়রনমেন্ট এন্ড সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট:ইস্যুজ এন্ড চ্যালেঞ্জেস (Population, Health, Environment and Sustainable Development : Issues and Challenges)’ শীর্ষক দুইদিনব্যাপী এই সম্মেলন এবং বিভাগের প্রথম প্রাক্তন শিক্ষার্থী সম্মিলনের উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম এমপি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর মুহম্মদ মিজানউদ্দিনের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহান ও কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর সায়েন উদ্দিন আহমেদ। পপুলেশন সায়েন্স এন্ড হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট বিভাগের সভাপতি প্রফেসর মো. মোস্তাফিজুর রহমান অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন এবং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. আশরাফুল ইসলাম খান ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বিভাগের শিক্ষক সুমাইয়া আবেদীন ও শিক্ষার্থী আহমেদ জহুরুল ইসলাম সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন।

সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক ড. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ‘Status of Health Information Systems in Bangladesh’, যুক্তরাষ্ট্রের হিউসটন বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ গবেষক ড. নজরুল হক ‘Population Change and the Future of Bangladesh’ ও থাইল্যান্ডের মাহিদল বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. ইয়োথিন সাওয়াংগদি ‘International Passive Migrants: Unemployment Poverty and Accessibility to Health Care in Developing Countries’ শীর্ষক তিনটি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

সম্মেলন উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পর এর প্রথম দিনে কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে একাডেমিক সেশন অনুষ্ঠিত হয়। এর প্রথম পর্বে চারটি ও দ্বিতীয় পর্বে পাঁচটি প্রবন্ধ উপস্থাপিত হয়।সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে ছয়টি সেশনে ৪০টি প্রবন্ধ ও পোস্টার উপস্থাপন সেশনে সাতটি প্রবন্ধ উপস্থাপিত হবে বলে নির্ধারিত আছে।

সম্মেলনে অতিথিবৃন্দ তাঁদের বক্তব্যে বলেন একটি নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জনসংখ্যা, পরিবেশ উন্নয়ন ও টেকসই উন্নয়নের জন্য দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা অত্যন্ত প্রয়োজন। সেই লক্ষ্যে এসব বিষয়ে একাডেমিক পর্যায়ে গবেষণা ও আলোচনা একান্ত আবশ্যক। সেসব থেকে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত আমাদের পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন কৌশলে কাজে আসবে। এই সম্মেলন থেকে প্রাপ্ত সুপারিশ ও পরামর্শ আমাদের পরিকল্পনা প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও তাঁরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

দুইদিনব্যাপী এই সম্মেলনে দেশ-বিদেশ থেকে প্রায় ১০০ জন সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের শিক্ষক, গবেষক, শিক্ষার্থী ও পেশাজীবী অংশ নিচ্ছেন।-সংবাদ বিজ্ঞপ্তি