Friday, 20 July 2018

 

শিক্ষার্থীদের সচেতন করতেই তিতাসের হেঁটে চলা

বাকৃবি প্রতিনিধি:পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালান গাজীপুর সরকারি মহিলা কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম তিতাস। এ লক্ষ্যে চার চাকার এক ট্রলিতে পোস্টার ও ফেস্টুন লাগিয়ে হেঁটে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করে যাচ্ছেন। হেঁটে চলেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা। শিক্ষকতার পাশাপাশি যে কোনো ছুটিতে পরিবারের সদস্যদের সময় না দিয়ে ছুটে চলেন দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।

প্রচার অভিযানে মঙ্গলবার তিনি এসে উপস্থিত হয়েছিলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) ক্যাম্পাসে। শিক্ষার্থীদের সচেতন করতেই তার এ ক্যাম্পাসে আসা। তিনি জানান, পরিচ্ছন্ন একটি দেশ গড়তে দেশের ছাত্র সমাজকেই সবার আগে সচেতন হতে হবে। দেশের সকল শিক্ষার্থীরা যদি পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে সচেতন হন এবং অন্যকে এ ব্যাপরে সচেতন করেন, তাহলে একটি পরিচ্ছন্ন দেশ গড়া সময়ের ব্যাপার মাত্র।  

জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের মাঝে সচেতনতা বাড়াতেই তিনি ২০১৩ সাল থেকে এ ব্যতিক্রমী উদ্যেগটি গ্রহণ করেছেন। ঠাকুরগাঁও সদরের আব্দুল মজিদ ও আনছারা বেগম দম্পতির পাঁচ সন্তানের মধ্যে তৃতীয় আমিনুল ইসলাম তিতাস। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগ থেকে ১৯৯৭ সালে অনার্স ও ১৯৯৯ সালে স্নাতকত্তোর সম্পন্ন করেন তিনি। পরে ২৪ তম বিসিএস পরীক্ষায় (শিক্ষা) উত্তীর্ণ হয়ে গাজীপুর সরকারি মহিলা কলেজে গণিত বিভাগের প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন।

তার স্ত্রী ড. উম্মে রায়হান ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক। স্ত্রীর উচ্চশিক্ষার সুযোগে জাপান গিয়েছিলেন তিতাস। জাপানকে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন দেখে নিজের দেশকেও পরিচ্ছন্ন দেখার অঙ্গীকার করেন। আর তা বাস্তবায়নে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে একাই নেমেছেন রাস্তায়। দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্টানে সচেতনতা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। নিজের খরচেই পোস্টার, ব্যানার-ফেস্টুন তৈরি করেন তিতাস। তিনি জানান, এ কাজে এখন পর্যন্ত কোনো প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতা নেননি। তবে সরকার কিংবা বেসরকারি কোন ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এ প্রচারাভিযানকে আরো বেগবান করা সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।