Wednesday, 23 May 2018

 

ইলিশের দেশে নদীপ্রেমীরা

আবুল বাশার মিরাজ, বাকৃবি প্রতিনিধি:শনিবার। ভোর সাড়ে ৫ টা। শুরু হয়েছে হাড় কাঁপানো মাঘের শীত। সারাদেশে চলছে শৈত্য প্রবাহ। এটা উপেক্ষা করেই যাত্রা ইলিশের দেশ চাঁদপুরে। উদ্দেশ্য নদী  প্রকৃতি, পৌরানিক কাহিনী, নদী তীরের মানুষের জীবন-জীবিকা, ক্রম বিকাশ প্রভৃতি সম্পর্কে জানা।

আমরা ঢাকাস্থ জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমি, ধানমন্ডি থেকে রওনা হই। সবমিলে আমরা প্রায় ৪০ জন। প্রথমে বাসে চড়ে সদরঘাটে পৌঁছাই। চাঁদপুরের লঞ্চ সেখানে অপেক্ষা করছে।  বাসে চড়েই শুরু হয় গানের মাতামাতি, লঞ্চে উঠে এটা আরো বেশি হয়। এর মাঝেও ছিল টেকনিক্যাল সেশন। লঞ্চে বসেই নদী বিশেষজ্ঞগণ সেগুলো পরিচালনা করতে থাকেন। আমাদের দেওয়া হয় কিছু গ্রুপ ওয়ার্ক। এগুলোর মধ্যে রয়েছে জেলেদের জীবন, নারীদের অর্থনৈতিক ভূমিকা, বালি উত্তোলন, নদী ভাঙন ও নদী যাতায়াত ব্যবস্থা প্রভৃতি।

চাঁদপুরে রয়েছে ১৭.২ হেক্টর এলাকা নিয়ে নদী কেন্দ্র। অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ের অর্থনৈতিক গুরুত্বসম্পন্ন মৎস্য প্রজাতির সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়নের বিভিন্ন দিক নিয়ে এ কেন্দ্রে গবেষণা পরিচালিত হয়ে থাকে। এ কেন্দ্র থেকে ইতোমধ্যে ইলিশ সম্পদের উন্নয়ন ও সংরক্ষণের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি, কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন উৎস চিহ্নিতকরণ, পোনা মাছ চাষ ও পাঙ্গাস মাছের পোনা উৎপাদন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করা হয়েছে।

এখানে রয়েছে প্রাণ জুড়ানো, নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেড এলাকা। এখানে পদ্মা, মেঘনা আর ডাকাতিয়া নদী এসে মিলিত হয়েছে। তিন নদীর কল কল ধ্বনি, ঢেউয়ের অপরূপ নৃত্য, আকাশে সূয্যি মামা আর মেঘমালার লুকোচুরি, কিংবা শেষ বিকেলে টকটকে লাল সূর্যে ঘুমিয়ে পড়ার দৃশ্য ছাড়াও অনেক কিছু।

এছাড়াও চাঁদপুরে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী ও বৃহত্তম জনপদ হলো রাজ রাজ রাজেশ্বর ইউনিয়ন। কালের পরিক্রমায় আজ অত্র ইউনিয়ন নদী ভাঙনের কারণে জনগণ  সুযোগসুবিধা হতে বঞ্চিত।

সরজমিনে সেসব দেখতে, বুঝতে ও জানতেই আমাদের যাচ্ছি রিভার ক্যম্পের অংশগ্রহণকারীরা। সাথে আছেন নদী বিশেষজ্ঞগণ। যারা নদীর খুব কাছাকাছি থাকেন, বাংলাদেশের নদী বাঁচিয়ে রাখতে সবসময় কাজ করেন।

আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা অক্সফাম ও সুইডিশ সরকারের সহায়তায় প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এমন ক্যাম্পটির আয়োজন করছে রিভারাইন পিপল ও সেন্টার ফর ন্যাচারাল রিসোর্স স্টাডিজ (সিএনআরএস)। চারদিনব্যাপী এ ক্যাম্পের তৃতীয় দিনে নদী ভ্রমনে আমরা রওনা হই। সাথে আছেন রিভারাইন পিপলের পরিচালক নুসরাত খান, ওয়াল্ড ব্যাংক বাংলাদেশ গ্রুপের ন্যাচারাল রিসোর্স ম্যানেজমেন্টের স্পেশালিস্ট ড. ইসতিয়াক সোবহান,  অক্সাফাম বাংলাদেশের মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশন কো-অর্ডিনেটর এ জি এম জোবাইদুর রহমান, ই এম খান সিদ্দীকি, সেন্টার ফর ন্যাচারাল রির্সোস স্টাডিজের প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর মোখলেসুর রহমান চৌধুরী, রিভারাইনের তরিকুল ইসলাম প্রমুখ।
====================
লেখক: শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ