Saturday, 18 August 2018

 

রাজধানীতে ৫ দিনব্যাপী পুষ্টি বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধন

প্রিন্স বিশ্বাস:সমন্বিত কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ প্রকল্প (বারটান অঙ্গ) এর আওতায় বাংলাদেশ ফলিত পুষ্টি গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের (বারটান) উদ্যোগে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ৩০ জন কর্মকর্তাদের ১৮ তম প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর শুরু হয়েছে। পাঁচ দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্ভোধনী অনুষ্ঠান কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও বারটানের নির্বাহী পরিচালক মোঃ মোশারফ হোসেনের সভাপতিত্বে আজ (শনিবার) সকাল ১০ টায় রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে অবস্থিত সেচ ভবনে বারটানের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পিপিসি) জনাব মোঃ নজমুল ইসলাম এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. মোঃ কবির ইকরামুল হক এবং বারটানের পরিচালক, যুগ্ম-সচিব কাজী আবুল কালাম। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনা করেন বারটানের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালক কৃষিবিদ জ্যোতিলাল বড়ুয়া।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বারটানের পরিচালক, যুগ্ম-সচিব কাজী আবুল কালাম বলেন,‘সুষম খাদ্য সম্পর্কে মানুষের সচেতনতা কম থাকায় জন্মের সময় নবজাতক কম ওজনের হয়, খর্বাকৃতির ও কিশকায় হয়। সেই সাথে মাতৃমৃত্যুহার, শিশু মৃত্যুহার বাড়ে ও আমাদের স্বাভাবিক বুদ্ধি বিকাশ বাঁধা প্রাপ্ত হয়। বারটান থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে নিজ নিজ কর্মস্থলে জনসাধারণকে পুষ্টি বিষয়ে সচেতন করে গড়ে তুলতে এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচী গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি মনে করেন।   

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পিপিসি) নজমুল ইসলাম বলেন, পুষ্টিহীনতায় ভুগলে আমরা সুদক্ষ ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশ সম্পন্ন জাতি পাব না। সরকার সে উপলব্দি থেকে দেশে পুষ্টি নিয়ে গবেষণা ও জনগণের  মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করতে নানামুখী কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

সভাপতির বক্তব্যে বারটানের নির্বাহী পরিচালক ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মোশারফ হোসেন বলেন, ‘বর্তমান সরকার দেশে পুষ্টি নিয়ে উন্নতর গবেষণা ও জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। আমাদের সুস্থ ও সবলভাবে বাঁচতে হলে পুষ্টি সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি পুষ্টি বিষয়ক গবেষণাকে বাংলাদেশ ফলিত পুষ্টি গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটকে (বারটান) মাধ্যমে সম্প্রসারণ করতে হবে। এর অংশ হিসেবে বর্তমান সরকার বারটানকে একটি আন্তর্জাতিক মানের পুষ্টি গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট হিসেবে গড়ে তুলতে দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ’।    

প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত পাঁচ দিনে মোট পঁচিশটি প্রশিক্ষণ ক্লাস অনুষ্ঠিত হবে।