Monday, 18 December 2017

 

একুশে বইমেলাতে আসছে পবিপ্রবি ছাত্রের “নিষিদ্ধ দ্বিপদী”

মোঃ মুস্তাফিজুর রহমান পাপ্পু,পবিপ্রবিঃ অমর একুশে বইমেলা’১৭ তে বের হচ্ছে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রাজীব নন্দীর “নিষিদ্ধ দ্বিপদী” পরিবার প্রকাশনীর ব্যানারে প্রকাশিত এই গল্পগুচ্ছের প্রচ্ছদ একেছেন ধ্রুব এষ।

দেশের বিভিন্ন ১ম সারির জাতীয় দৈনিকের ম্যাগাজিনের নিয়মিত হাস্য রসাত্বক লেখনী লিখে সারাদেশে তরুন লেখক হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিত মুখ তিনি। তবে এবারই প্রথম নিজের লেখা গল্পগুলোকে নিয়ে পুস্তক আকারে বের হচ্ছে “নিষিদ্ধ দ্বিপদী”।
 
“নিষিদ্ধ দ্বিপদী” সম্পর্কে রাজীব নন্দী বলেন, “নিষিদ্ধ দ্বিপদী মূলত গল্পগুচ্ছ। দশটি গল্পের অন্তর্ভূক্তি রয়েছে এতে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর যে গল্পের পায়ে শিকল পরিয়ে‘ ছোটগল্প’ নামকরণ করছেন এ গল্প সেই নিয়মের বাহিরে তা আগেই জানিয়ে রাখছি। কেননা খেলার মাঠে বাউন্ডারি দিয়ে চার ছক্কা নির্ণয় করা যায় কিন্তু‘ কল্পনা জগতে সে সব চলে না।

প্রচ্ছদে স্থান পেয়েছে যে ‘নিষিদ্ধ দ্বিপদী’ নামটি সেটি মূলত ভুল করে নিজেকে পতিতাপল্লীতে আবিষ্কার করা একটি মেয়ের কাহিনী। তার কল্পনা জগত, সমাজসম্পর্কে দৃষ্টিভঙ্গি এবং দ্বিচারিণী হয়ে বেঁচে থাকার গল্প। ভুল করে ভুল করলেও যে সমাজ তাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে পিছপা হয় না। দেহ আর মনের প্রতিনিয়ত যুদ্ধ চলতে থাকে নিষিদ্ধ করিডোরে। যে একসময় স্বীকার করে সে সমাজের প্রচলিত স্বাধীন মানুষ নয় নিষিদ্ধ দ্বিপদী। বাকী গল্পগুলো সম্পূর্ণ ভিন্নভিন্ন প্লটের উপর দাঁড়িয়ে আছে। বিচারের ভার সম্পূর্ণ পাঠকের ওপর বর্তায়। যেহেতু‘নিষিদ্ধ দ্বিপদী’আমার প্রথম প্রয়াস তাই পাঠকই বিচার করবে সাহিত্যের খেলায় আমার খেলোয়ার গুনাগুন।
==========
লেখক পরিচিতিঃ
নামঃ রাজীব নন্দী
জন্ম ৪ মার্চ ১৯৯২
ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার কালীর হাটে জন্মগ্রহন করেন। বই পড়তে এবং অন্যদের বই পড়তে উৎসাহ দেওয়ার ভাবনা থেকেই নিজ এলাকায় একসময় গড়ে তুলেছিলেন “পিদিম পাঠাগার”নামে লাইব্রেরি। স্কুল লাইফ থেকে বিভিন্ন ছড়া, কবিতা ও গল্প লেখায় হাতে খড়ি হলেও প্রচার বিমুখ মানুষটা লেখালেখিতে আত্মপ্রকাশ ঘটান বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে।সমকাল ম্যাগাজিন ‘প্যাঁচআল’ ইত্তেফাক ম্যাগাজিন ‘ঠাট্টা’ যুগান্তর ম্যাগাজিন ‘বিচ্ছু’ তে এবং বিভিন ম্যাগাজিন ও অনলাইন পত্রিকায় লেখালেখি করছেন বেশ কিছুদিন যাবত।

বরিশাল অমৃতলাল দে কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এইচএসসি সম্পন্ন করেন। বর্তমানে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ডক্টর অব ভেটেরিনারি মেডিসিন’ সাবজেক্টে অধ্যয়নরত অবস্থায় আছেন।