রাবিতে বিদেশে উচ্চশিক্ষার সুযোগ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত
Friday, 22 September 2017

 

রাবিতে বিদেশে উচ্চশিক্ষার সুযোগ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

এস.এম.আল-আমিন,রাবি প্রতিনিধিঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) বিভিন্ন বিভাগের স্নাতকোত্তর থিসিস গ্রুপের শিক্ষার্থীদের জন্য বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বিশ্ববিদ্যালয় সিনেট ভবনে সকাল ৯টায় এই কর্মশালার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি উপাচার্য প্রফেসর মুহম্মদ মিজানউদ্দিন।

কর্মশালা উদ্বোধন করে উপাচার্য তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় বলেন, বিশ্বে যা কিছু কল্যাণকর, যা কিছু মানুষের উন্নয়নে অবদান রেখেছে তা জ্ঞান চর্চার মাধ্যমেই হয়েছে। আমাদের শিক্ষার্থীদের মধ্যে যে অমিত সম্ভাবনা আছে তার স্ফুরণ ঘটানোর জন্য বিশ্বের সমসাময়িক জ্ঞান চর্চার প্রত্যক্ষ যোগাযোগ থাকা একান্ত প্রয়োজন। এই জন্য আমাদের শিক্ষার্থীদের বিদেশী জ্ঞানকেন্দ্র তথা বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ একান্ত প্রয়োজন। তারা মেধা ও মননে উন্নত বিশ্বের সমপর্যায়ের । তবে বিদেশী একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে যেয়ে শিক্ষা গ্রহণে যে সব প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতে হয় তা কাটিয়ে ওঠার জন্য প্রয়োজন সঠিক তথ্য জানা ও তা মোকাবেলার প্রস্তুতি। সে লক্ষ্যে এই কর্মশালা কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

রাবির বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও স্কলারশিপ সম্পর্কিত ওয়ার্কশপ কমিটি আয়োজিত এই কর্মশালায় বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের অধিকর্তা প্রফেসর মো. শিবলী সাদিক সভাপতিত্বে ও কমিটির সদস্য-সচিব ছাত্র-উপদেষ্টা প্রফেসর মো. মিজানুর রহমান’র সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহান প্রমূখ।

কর্মশালা উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পর অনুষ্ঠিত হয় সাতটি টেকনিক্যাল সেশন। এতে উচ্চশিক্ষার বিভিন্ন দিক সম্পর্কে আলোচনা ও কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীদের প্রশ্নের উত্তর দেন, প্রফেসর মো. খালেদ হোসেন (প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগ) ও প্রফেসর মো. খাদেমুল ইসলাম মোল্যা (কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং) জাপান, প্রফেসর মো. শিবলী সাদিক (অধিকর্তা, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ) অস্ট্রেলিয়া, প্রফেসর মো. আবু রেজা (জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়োটেকনোলজি) সিঙ্গাপুর, প্রফেসর এসএম মঞ্জুরুল আলম (রসায়ন) মালয়েশিয়া, ড. চন্দন রায় (ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা) সুইডেন, ড. মো. আরিফুল হক (ইনস্টিটিউট অব বায়োলজিক্যাল সায়েন্সেস) যুক্তরাজ্য এবং ড. মো. আব্দুল আলিম (আইন) যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা।