Saturday, 18 November 2017

 

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপিত

ক্যাম্পাস ডেস্ক:আজ রবিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদ্যাপন করা হয়। দিবসের প্রথম প্রহর রাত ১২:০১ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর সায়েন উদ্দিন আহমেদসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। সেখানে তাঁরা অমর শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতাও পালন করেন। প্রশাসনের পর সেখানে শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালাসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের  পক্ষ থেকেও  পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

ভোরে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রধান প্রধান ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৬:৩০ মিনিটে বিভিন্ন আবাসিক হল, ইনস্টিটিউট, বিভাগ, অন্যান্য পেশাজীবী এবং সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রভাত ফেরী ও শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয় স্কুলে কুচকাওয়াজ ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর শেখ রাসেল মডেল স্কুলে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত দেশাত্ববোধক গান ও মুক্তিযুদ্ধের উপর কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নাটক ‘ফিরিয়ে দেই স্বাধীনতা’। অনুষ্ঠানে কোষাধ্যক্ষ প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান করেন। সেখানে অন্যান্যের মধ্যে রেজিস্ট্রার, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক, স্কুলের অধ্যক্ষ, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে একই সময় রাবি অফিসার সমিতি, সহায়ক কর্মচারী সমিতি, সাধারণ কর্মচারী ইউনিয়ন ও পরিবহন টেকনিক্যাল কর্মচারী সমিতির নিজ নিজ কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮:৩০ মিনিটে কেন্দ্রীয় ক্যাফেটরিয়ায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রাবি ইউনিট কমা-ের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সকাল ৯:৩০ মিনিটে সাবাস বাংলাদেশ চত্বর থেকে বিএনসিসি, রোভার স্কাউট ও রেঞ্জারদের শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১০:৩০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে শিক্ষক বনাম কর্মকর্তা প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল ৩:৩০ মিনিটে এই স্থানে সহায়ক, সাধারণ ও পরিবহন কর্মচারী সমিতির প্রীতি ফুটবল ম্যাচ এবং ৪:৩০ মিনিটে ছাত্রদের প্রীতি ফুটবল ও ছাত্রীদের প্রীতি হ্যান্ডবল/ভলিবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল ৫টায় বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে শিক্ষক বনাম কর্মকর্তা প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

এদিন বিকেল ৫:৩০ মিনিটে প্রশাসন ভবনের কনফারেন্স রুমে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষে কোষাধ্যক্ষ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

দিবসের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল বাদ জোহর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও হল মসজিদসমূহে বিশেষ মোনাজাত, সন্ধ্যা ৭টায় কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এদিন শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালা সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য খোলা ছিল। বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন নিজস্ব কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি উদ্যাপন করে।