Friday, 17 November 2017

 

শিক্ষার্থী বহিষ্কারের প্রতিবাদে নোবিপ্রবিতে পরীক্ষা বর্জন ও অবস্থান ধর্মঘট পালন

কামরুল হাসান শাকিম,নোবিপ্রবি প্রতিনিধি:নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের(নোবিপ্রবি) ফার্মেসী বিভাগের ২০১২-১৩ সেশনের এক শিক্ষার্থীকে ৩ বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। জানা যায় ,গত ২১ শে মে (রবিবার) বিকাল বেলার পরীক্ষায় আইরিন আক্তার নামের ওই শিক্ষার্থী পরীক্ষার উত্তরপত্র পরীক্ষার হলে জমা না দিয়ে পরীক্ষার কেন্দ্রের বাইরে নিয়ে যাওয়ার কারনে এ বহিষ্কার করা হয়েছে ।

এদিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উক্ত বিভাগের সংশ্লিষ্ট ব্যাচের  সকল শিক্ষার্থী আজকের পরীক্ষা বর্জন করে বিভাগের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালন করেন । শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন,  ভুলক্রমে সে প্রশ্নের সাথে উত্তরপত্র ব্যাগে করে বাসার উদ্দেশ্যে চলে যায় । পরে  উক্ত পরীক্ষার দিন পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকরা জানান যে যত দ্রুত সম্ভব উত্তরপত্র জমা দিয়ে যেতে এবং এ সম্পর্কে কাউকে কিছু না বলতে। পরবর্তীতে কোন সমস্যা হবেনা বলেও তাঁরা আশ্বস্ত করেন । সে অনুসারে ওই শিক্ষার্থী উত্তরপত্র জমা দিয়ে যান এবং পরবর্তীতে  ২৫ তারিখের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন । কিন্ত ৩১ তারিখের পরীক্ষা দিতে এসে দেখেন তাঁকে বহিষ্কার করা হয়েছে ।

শিক্ষার্থীরা আরো অভিযোগ করে বলেন, মিথ্যা আশ্বাস না দিয়ে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকবৃন্দরা আগেই কেন শাস্তির কথাটি বলেননি । একাডেমিক পড়াশুনায় উক্ত শিক্ষার্থী ভালো তবে কিছুদিন ধরে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত থাকায় এমনটা হয়েছে বলেও উক্ত শিক্ষার্থীর সহপাঠীরা জানান ।

অভিযুক্ত শিক্ষার্থী জানান, ২৯ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত বহিষ্কারের আদেশ দেয়া হলেও এর আগে যে কোনো ব্যাপারে কারন দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয় ।  কিন্ত তিনি কারন দর্শানোর নোটিশ পান ৩১ তারিখে । ২৮ তারিখে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক স্বাক্ষরিত নোটিশটি ৩১ তারিখ তিনি গ্রহণ করেন। উক্ত নোটিশে ৪ জুনের মধ্যে পরীক্ষানিয়ন্ত্রক বরাবর লিখিত জবাব দিতে বলা হয় । তিনি আরো বলেন, “আমার লিখিত বক্তব্য ছাড়াই আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে তাও আগে বহিষ্কার করে পরে আমাকে কারন দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে” ।  

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বিভাগের প্রধান এবং মাননীয় উপাচার্য ড. এম অহিদুজ্জামান বলেন, “পরীক্ষায় অসুদুপায়ের ক্ষেত্রে বরাবরই আমি জিরো টলারেন্স । তাৎক্ষণিক আমি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি । তবে একটি শিক্ষার্থী কীভাবে শিক্ষকদের অগোচরে কেন্দ্র থেকে উত্তরপত্র বাইরে নিয়ে যায় সে বিষয় খতিয়ে দেখা হবে । তারপর শাস্তি পূনর্বিবেচনা করা হবে” । তিনি উক্ত শিক্ষার্থীকে উপাচার্য বরাবর লিখিতভাবে আবেদন করতেও বলেন ।