Tuesday, 12 December 2017

 

শেকৃবির ভর্তি পরীক্ষায় কঠোর নিরাপত্তা

ক্যাম্পাস ডেস্ক:শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮ সেশনের প্রথমবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় দুষ্কৃতকারী ও স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর অপ:তৎপরতা ঠেকাতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে প্রশাসন। পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রসমূহে ভ্রাম্যমান আদালত নিয়োজিত থাকবে। ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন বা অন্য কোন ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষার্থীগন পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে না। এমনকি পরীক্ষা চলাকালীন পরিদর্শকবৃন্দের কেহই মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবে না।

মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদের পক্ষ থেকে এসব কথা জানান উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সেকেন্দার আলী। সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক ড. মো. সেকেন্দার আলী বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার গুণগত মান বজায় রাখতে এবং মেধা যাচাইয়ের স্বার্থে অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করতে তারা বদ্ধপরিকর। পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রসমূহে ভ্রাম্যমান আদালত নিয়োজিত থাকবে। ইতোমধ্যে অনুষ্ঠিত দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এ বিষয়ে যেসমস্ত সমস্যা ধরা পড়েছে তার আলোকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আগে ভাগেই তা নিরোধে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের সময় ভর্তি পরীক্ষার্থীদের সবধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইসের ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও জানান, পরীক্ষার্থী কান কাপড় দিয়ে কোনোভাবেই ঢেকে রাখতে পারবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্বক্ষণিক মোবাইল কোর্ট অবস্থান করবে এবং কোনো অনিয়ম হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। কোনো ধরনের ভোগান্তি ছাড়াই যাতে পরীক্ষার্থীরা হলে প্রবেশ করতে পারে এবং সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা দিতে পারে, সে জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

প্রফেসর ড. সেকেন্দার আলী বলেন, পরীক্ষা চলাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনশৃক্সখলা পরিস্থিতি সুষ্ঠু ও স্বাভাবিক রাখার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা চলাকালীন সার্বিক নিরাপত্তা দিতে প্রক্টরিয়াল বডির সঙ্গে রোভার স্কাউট সদস্য, বিপুলসংখ্যক পুলিশ, র‌্যাব ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য এবং মোবাইল কোর্ট সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪ টি অনুষদে ৬৮২ টি আসনের বিপরীতে চলতি শিক্ষাবর্ষে আবেদন করেছে ৩৮ হাজার ১ শত ২৫ জন প্রতিযোগী। এক আসনের বিপরীতে গড়ে ৫৬ জন শিক্ষার্থী ভর্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করবে। ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ০১ ডিসেম্বর শুক্রবার সকাল ১০ টায়। বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর মোট ১৬ টি কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ভর্তি পরীক্ষার বিষয় ও পদ্ধতি :
সাধারণজ্ঞান, ইংরেজি এবং উচ্চ মাধ্যমিক পাঠ্যক্রম অনুযায়ী পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত ও জীববিজ্ঞান বিষয়গুলোর ওপর এমসিকিউ পদ্ধতিতে ১০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা হবে, সময় ১ ঘণ্টা।

গ্রেডিং পদ্ধতিতে এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ এর আটগুণ এবং এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ এর ১২ গুণ নম্বর লিখিত পরীক্ষার ১০০ নম্বরের সঙ্গে যোগ করে মোট ২০০ নম্বরের ওপর মেধা তালিকা প্রস্তুত করা হবে।