Thursday, 14 December 2017

 

লাভজনক খামার করতে হলে মুরগির পালক বদলানো সম্পর্কে ধারণা থাকা প্রয়োজন

কৃষিবিদ রুহুল আমিন মন্ডল:প্রাকৃতিক নিয়মে মুরগির শরীরের পুরাতন পালক পড়ে নতুন পালক উঠার প্রক্রিয়াকে ইংরেজিতে মোল্টিং বলে। পালক বদলানোর স্বভাব থেকে একটি মুরগির ডিম উৎপাদন ক্ষমতা সম্পর্কে অনুমান করা যায়। তাই লাভজনকভাবে খামার করতে হলে মুরগির পালক বদলানো সম্পর্কে ধারণা থাকা প্রয়োজন।

মোল্টিং দুই প্রক্রিয়ায় হয়ঃ

১) Natural বা প্রাকৃতিক মোল্টিং:মুরগি বংশগতভাবে পালক বদলের বৈশিষ্ট্য পেয়ে থাকে। যে সব মুরগির অল্প বয়সে পালক বদল করে সেগুলো ভাল ডিম দেয় না। বেশি ডিম দেয়া মুরগির পালক বদল দেরিতে হয়ে থাকে এবং দ্রুত কম সময়ে পালক বদল সম্পন্ন করে। মুরগির পালক বদলের সময় সাধারণত ডিম পাড়া থেকে বিরত থাকে। মুরগি সাধারণত বছরে এক বার পালক বদল করে। মুরগি একসাথে শরীরের সকল পালক বদল করে না। মুরগির পালক বদল সাধারণত প্রথমে মাথার অংশে, পরে গলা, বুক, পিঠ, পেট, অতঃপর পাখা এবং সর্বশেষে লেজের অংশে হয়ে থাকে।

২) Force বা কৃএিম মোল্টিং:বিভিন্ন পদ্ধতিতে বল প্রয়োগ করে যে মোল্টিং করা হয় তা Force বা কৃত্রিম মোল্টিং।Force-মোল্টিং আবার চার ভাগে ভাগ করা যায়।

A) Conventional Force Molting
B) Washington Force Molting,
C) California Force Molting,
D) Chemical Force Molting Program,  

এ সংখ্যায় মুরগীর কৃত্রিম মোল্টিং সম্বন্ধে আলোচনা করব।

কেন এবং কি পরিস্থিতিতে Force Molting মোল্টিং করব?

  • হঠাৎ ডিমের মূল্য কমে গেলে,
  • যদি নতুন ১ দিনের বাচ্চা কেনার মত টাকা না থাকে,
  • একদিনের বাচ্চার উচ্চ মূল্য থাকে,
  • যদি Cull মুরগীর দাম অলাভজনক বা খুবই কম হয়,
  • উৎপাদন খরচ থেকে ডিমের বাজার মূল্য কম হলে,
  • ১ (এক) দিনের বাচ্চা সহজে পাওয়া না যায়,
  • পরবর্তী ব্যাচের গ্রোয়িং মুরগীর অবস্থা ভাল না হয় অর্থাৎ (High mortality) হলে।

মোল্টিং এর সুবিধা:

  • কম টাকা খরচ করেই বেশী পরিমাণে লাভবান হওয়া যায়,
  • Force মোল্টিং এর জন্য বাচ্চা কেনা লাগবে না,
  • গ্রোয়িং এর মত বেশী পরিমাণ ভ্যাকসিন দেয়া লাগবে না,
  • ৮ সপ্তাহ পরই মুরগী উৎপাদনে ফিরে আসবে।

মোল্টিং প্রোগ্রামের প্রকারভেদ:
ডিম উৎপাদনকারী লেয়ার মুরগীর মোল্টিং এক বা একাধিকবার করা যায়। সাধারনত ২ ধরনের Force মোল্টিং প্রোগ্রাম হয়ে থাকে।

২য় সাইকেল Force মোল্টিং প্রোগ্রাম:
এই প্রোগ্রাম একবার মোল্টিং করা হয় এবং দুইবার (২টি সাইকেল) ডিম পাড়ে। লেয়ার মুরগীর বয়স ৫৫-৬০ সপ্তাহ হলে মোল্টিং করা হয় যা পরবর্তীতে ৬ মাস বা ২৪ সপ্তাহ পর্যন্ত ডিম পাওয়ার পর মুরগী গুলিকে Cull করা হয়।

৩য় সাইকেল Force মোল্টিং প্রোগ্রাম:-  
এই প্রোগ্রাম দুই বার মোল্টিং করা হয় এবং তিনবার (৩টি সাইকেল) ডিম পাড়ে। লেয়ার মুরগীর বয়স ৫০-৫৫ সপ্তাহ হলে ১ম বার মোল্টিং করা হয়। পরে ৬-৮ মাস ডিম দেয়ার পর আবার ২য় বার মোল্টিং করা হয়। পরে কমপক্ষে আবার ৬-৮ মাস পর্যন্ত ডিম দেয়ার পর মুরগী Cull করা হয়।

দৈহিক ওজনের গাইড লাইন:
Thumb Rule হলো মোল্টিং করার পর মুরগীর ওজন হবে ১৫-১৬ সপ্তাহের দৈহিক ওজনের মত অর্থাৎ প্রায় ১২৫০ গ্রাম। মোল্টিং পূর্ব হতে মোল্টিং করার পর ভাল উৎপাদন পাওয়ার জন্য দৈহিক ওজন ৩০-৩২% কমাতে হবে।

কত সময় লাগবে:
১)Fast মোল্টিং: যদি দ্রুত উৎপাদনে ফিরে আসতে চাই, এভাবে মোল্টিং করেল ৫০% পর্যন্ত উৎপাদনে ফিরে আসতে সময় লাগবে ৬ সপ্তাহ।
২)Normal মোল্টিং: এতে সময় লাগবে ৮ সপ্তাহ এবং ৩০% দৈহিক ওজন কমাতে হবে।
৩)Slower  মোল্টিং ঃ এত সময় লাগবে ১০ সপ্তাহ অর্থাৎ উৎপাদন দেরীতে ফিরে আসবে।

কি সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে:

  • অসুস্থ্য কোন ফ্লকে এ প্রোগ্রাম চালানো যাবে না,
  • প্রোগ্রামের শুরুতে অসুস্থ, কম দৈহিক ওজন সমপন্ন যে কোন Deformities মুরগী বাচাই করে Cull করতে হবে।
  • ১ম সাইকেলে যে ফ্লক ভাল উৎপাদন হয়েছে ঐ রকম ফ্লক নির্বাচন করতে হবে,
  • সর্বোচ্চ ২% এর বেশী  মরটালিটি হতে দেয়া যাবে না,
  • গরমের সময় পানির বন্ধ রাখা যাবে না।

মোল্টিং শুরুর পূর্বে কাজ:
দুর্বল, অসুস্থ্য ও খোড়া মুরগী বাছাই করে বাকী মুরগী ছোট, মধ্যম ও বড় তিন ভাগে গ্রেডিং করতে হবে।

কার্য পদ্ধতি:

  • শুরুর দিনে কিছু মুরগী বা বাচ্চার কিছু খাঁচা নির্দিষ্ট করে নিতে হবে এবং ঐ মুরগীগুলির ওজনের রেকর্ড নিতে হবে
  • মুরগীর খাদ্য বন্ধ করে দিতে হবে,
  • এ ভাবে চলবে ৩০% ওজন কমা পর্যন্ত,
  • ১০ম দিনের পর নির্দিষ্ট  খাঁচার মুরগীগুলির ২-৩ দিন পর পর ওজন নিতে হবে কত টুকু ওজন কমল,
  • যদি Mortility বেড়ে যায় তাহলে ২৫-২৮% দৈহিক ওজন কমার পরই খাদ্য শুরু করতে হবে।
  • ফিডিং এর শুরু থেকে Grower Feed দিতে হবে,
  • ৫% উৎপাদন আসলে লেয়ার ফিড শুরু করতে হবে
  • উৎপাদন অনুযায়ী ফিড বাড়াতে হবে।

গুরুত্ব পূর্ণ মন্তব্য:

  • মোল্টিং এর ৭ম অথবা ৮ম দিনের উৎপাদন শূন্য হবে,
  • সাধারণত পালক ১৫-২০ দিনের মধ্যেই পড়ে যাবে।
  • ফ্লক মোল্টিং এর ৫ম সপ্তাহ বয়সে উৎপাদন শুরু হবে, ৭ম সপ্তাহ বয়সে ৫০% উৎপাদন হবে এবং ৯ম সপ্তাহ বয়সে সর্বোচ্চ উৎপাদন হবে।
  • ভাল মোল্টিং হলে ২য় সাইকেলে উৎপাদন ১ম সাইকেলের তুলনায় ১০% কম হবে।

সর্তকীকরণঃ - মোল্টিং এ জ্ঞান থাকা পোল্ট্রি বিশেষজ্ঞ এর তত্ত্বাধানে মোল্টিং করতে হবে।
==============
লেখক পরিচিতিঃ-
সিনিয়র ফার্ম ম্যানেজার
নারিশ পোল্ট্রি এন্ড হ্যাচারী লিঃ,
ইমেইল:
মোবাইলঃ ০১৯১৯-৮৪১৮৭৩।