Friday, 17 November 2017

 

দেশের পোল্ট্রি শিল্প সংশ্লিষ্ট রিপোর্টিং-এ আন্তর্জাতিক পুরষ্কার অর্জন করলেন ড. বায়েজিদ মোড়ল

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:বাংলাদেশের কৃষি সাংবাদিক ড. মো. বায়েজিদ মোড়ল আন্তর্জাতিক পুরষ্কার অর্জন করলেন। সম্প্রতি দক্ষিন আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায় অনুষ্ঠিত এক জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই পুরস্কারের ঘোষনা করা হয়। প্রতিযোগিতাটির যৌথ আয়োজক হিসেবে ছিল  International Federation of Agricultural Journalists (IFAJ) এবং Food and Agriculture Organization (FAO)।

প্রতিযোগিতাটির ৬টি ক্যাটাগরিতে যে ১০ জন সাংবাদিক International Federation of Agricultural Journalists (IFAJ), এওয়ার্ড পেয়েছেন এশিয়া মহাদেশের মধ্যে ড. বায়েজিদ মোড়ল একমাত্র।  প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৫৭টি দেশের কৃষি সাংবাদিকরা অংশ গ্রহণ করে। প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল কৃষি ও কৃষির উপখাত নিয়ে লেখা ও প্রতিবেদন।

এ প্রসঙ্গে ড. বায়েজিদ মোড়ল এগ্রিলাইফ২৪ ডটকমকে জানান-গত ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে International Federation of Agricultural Journalists (IFAJ), Food and Agriculture Organization (FAO) এর  সহযোগিতায় অনলাইনের মাধ্যমে সারা বিশ্বের কৃষি সাংবাদিকদের কাছে রিপোর্ট আর প্রতিবেদন আহবান প্রজ্ঞাপন জারি করে। গাজী টিভির কৃষি সাংবাদিক হিসেবে তিনি তাঁর পরিচালিত সবুজ বাংলা অনুষ্ঠানের একটি পর্ব অন লাইনের মাধ্যমে IFAJ নিয়ম নীতি অনুসরন ফরম পূরন করে একটি আবেদন করেন। তাঁর পাঠানো প্রতিবেদনটি ছিল  বাংলাদেশের পোল্ট্রি শিল্প।

প্রতিবেদনে তিনি শিল্পের গড়ে ওঠা, পোল্ট্রি শিল্পে বার্ডফ্লু’র প্রাদুর্ভাবে ক্ষয়ক্ষতি, এরপর ঘুরে দাড়ানো! তারপর মানবসৃষ্ট হরতাল অবরোধ সহিংসতায় ধ্বংশপ্রায় পোল্ট্রি শিল্প কিভাবে ঘুরে দাড়ালো! শেষ ৫ বছর যাবৎ ডিম ও পোল্ট্রি মাংসের দাম অপরিবর্তন কিভাবে রাখা! দিনে দিনে পোল্ট্রির ডিম ও মাংশ জনপ্রিয় হচ্ছে। আর সরকারী ভাবে কি ধরনের পদক্ষেপ নিলে এই শিল্প ২০২০ সালে পোল্ট্রির ডিম ও মাংসের উৎপাদন ও এই খাতে ইনভেষ্টমেন্ট দ্বিগুণ হবে এর উপর একটি প্রতিবেদন।

ড. বায়েজিদ মোড়ল ২০০০ সালে একুশে টেলিভিশনে চাকরি শুরু করেন। ইটিভিতে ‘দেশজুড়ে’ অনুষ্ঠানটির প্রযোজনার সাথে জড়িত ছিলেন। এরপর তিনি চ্যানেল আইতে জনাব শাইখ সিরাজের ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানের তথ্য সংগ্রহের কাজ করতেন। এরপর তিনি বাংলাভিশনে ‘শ্যামল বাংলা’ অনুষ্ঠানটি শুরু করেন। এখনো ‘শ্যামল বাংলা’র পরিচিতি সারা দেশ ব্যাপি। পরবর্ত্তীতে তিনি বৈশাখি টেলিভিশনের ‘কৃষি ও জীবন’ অনুষ্ঠানেরও প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। এখন তিনি জিটিভির ‘সবুজ বাংলা’ অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করছেন।

খুলনা জেলার দিঘলিয়া উপজেলার লাখোহাটি গ্রামের এক কৃষক পরিবারের ছেলে এই বায়েজিদ। অনেক ছোট বেলা থেকে তার দাদার সাথে জমিতে কাজ করতেন তিনি। হাল চাষ থেকে শুরু করে ধান কাটা ও সব ধরনের চাষবাস নিজে হাতে করতে পারেন। বর্তমানের তার গ্রামে ৫ একর জমিতে ঘের কেটে তিনি মাছ চাষ করছেন। বায়েজিদ মোড়ল বাংলা সাহিত্যে অনার্সসহ মাষ্টার্স পাস করলেও পিএইচডি করেছেন ‘বাংলাদেশ এগ্রিকালচার সেক্টর ডেভেলোপমেন্ট রোল অব ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়া’র উপর। তার ধান জ্ঞান স্বপ্ন সব কিছুই কৃষি নিয়ে।

তিনি মনে করেন তিনি নির্বাকের সেবা করছেন। তিনি কোন খামারে গেলে খামারের গাছ পালা ফসল গরু ছাগল মহিষ ভেড়া মুরগী সবাইকে আপন ভেবে আদর করেন ও তাদের শারীরিক চিকিৎসার ব্যাপারে খামারীর সাথে কথা বলেন। কারন তিনি দেখলেই বলতে পারেন গাছ পালা ফসল গরু ছাগল মহিষ ভেড়া মুরগী হাঁসের কার শরীরে কি ধরনের সমস্যা হয়েছে। বায়েজিদ নিয়মিত ভাবে কৃষি উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। কৃষি সাংবাদিকতাকে পেশা ও নেশা হিসেবে নিয়ে প্রচন্ড ভালবাসেন।

এদিকে তাঁর আন্তর্জাতিক পুরষ্কার অর্জনে দেশের কৃষি সংশ্লিষ্ট অনেকেইে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। তারা বলেন ভিডিও ব্রডকাষ্টিং ক্যাটাগরিতে গাজী টেলিভিশনের কৃষি সাংবাদিক ড. বায়েজিদ মোড়ল আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশের মুখ উজ্জল করেছে।

উল্লেখ্য, বিগত ২০১৬ সালে নভেম্বর মাসে বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাষ্ট্রিজ সেন্টার কাউন্সিল (বিপিআইসিসি) কর্তৃক আয়োজিত  পোল্ট্রি মিডিয়া এওয়ার্ড প্রতিযোগিতায় টেলিভিশন ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন  ড. মো. বায়েজিদ মোড়ল। এছাড়া ইতিপূর্বেও তিনি তাঁর কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ সরকারী বেসরকারী মিলিয়ে মোট ২১টি পদক ক্রেষ্ট সাটিফিকেট ও সম্মাননা স্মারক পেয়েছেন।