Friday, 24 November 2017

 

জেনে রাখুন বাকৃবির ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি হয়না

আবুল বাশার মিরাজ, বাকৃবি:৪ নভেম্বর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ২০১৭-১৮ শেসনের স্নাতক শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা। আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের রয়েছে কঠোর নজরদারি। শুধু প্রশাসনই নয় বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের প্রায় সকল সদস্যই রয়েছেন একজন জাগ্রত নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে। অতীত ইতিহাস বলে এ বিশ্ববিদ্যালয়টিতে কোনবারেই ভর্তি জালিয়াতি, অসূদপায়, অনিয়ম, দূনীর্তি কিংবা প্রশ্ন ফাসের কোন ঘটনাটি ঘটেনার মাধ্যমে ভর্তি হতে পারেন নি। আমার মনে হয় এ বিশ্ববিদ্যালয়ের এরকম চ্যালেঞ্জ অনান্য বিশ্ববিদ্যালয়ও গ্রহণ করতে পারেন।

ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা করার কারণে করেই দেশের অনেকের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে হয়। পরিচিতিও হয়েছে অনেক। পরীক্ষার কয়েকদিন আগে থেকেই পরিচিতদের ফোন কল পাওয়া খুবই স্বাভাবিক একটি বিষয় হয়ে গেছে। অনেকেই বলেই ফেলেন, প্রশ্ন আগে পাওয়া যায় কিনা? নিজের ফুফাতো বোনও সেটি বলতে কার্পণ্য করেন নি এবার। শুধু ধরে নিয়েছি, স্বচ্ছতা নেই হয়ত অনান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে, তাই হয়তো আমাদেরকেও সন্দেহ করছেন। ভালো ভাবেই বুঝিয়েছি ওসব এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অতীতে হয়নি, এখনও হয়না, ভবিষ্যতেও এ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের কেউ হয়ত হতেও দিবো না।

অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন ভর্তি বাণিজ্য চলে তখন বাকৃবি দৃঢ় প্রত্যয়ে সুনাম রক্ষার লড়াই করে। হয়তো আমার বোন এটি বুঝেছে। ভতিচ্ছু সবাইকেই বলছি, এ বিষয়টি মাথায় না নেওয়ার। পড়াশোনা করেই এ বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেতে হবে অন্যথায় কোন ভাবেই সম্ভব নহে।

ভর্তি পরীক্ষা বাকৃবির একটি উৎসব:
অনেক অাগে থেকেই ভর্তি পরীক্ষা এ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি উৎসবে পরিণত হয়ে গেছে। কারণ দিনটিতে সমাগম ঘটে ১২ হাজার ভতিচ্ছু শিক্ষার্থী ও আরো কয়েক হাজার অভিভাবকের। বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের কাছে তারা প্রত্যেকেই অতিথি। তাদের সম্মানের কমতি করে কেউই। যে যেভাবে পারে তাদের সহায়তা করে। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে এ দিনটিতেই কেবল এত অতিথির সমাগম ঘটে। তাই সবার মধ্যে বিরাজ করে অন্যরকম অানন্দ।

এ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবারের সদস্যর কতটা অতিথিপরায়ণ তা কেবল যারা এ ক্যাম্পাসে এসেছেন, থেকেছেন ঠিক তারাই ভালো বলতে পারবেন। ভর্তি পরীক্ষার্থীদের জন্য নিজের কক্ষ ছেড়ে সারা রাত্রি নির্ঘুম কাটানোর অভিজ্ঞতা রয়েছে বাকৃবির প্রতিটি শিক্ষার্থীর। সব ধরনের রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতাকর্মীরাও ব্যস্ত সময় পার করেন ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে। তাবলীগ নামের একটি সংগঠনের শিক্ষার্থীরা আগত ভতিচ্ছুদের জন্য সকালে হলের মসজিদে নিয়ে গিয়ে মোরগ-পোলাও খাওয়ান। সকলকে তা বিনামূল্যে আপ্যয়ন করা হয় এটি। এছাড়াও সকল জেলা সংগঠনের কর্মকান্ড এসময় বেশি অাঁচ করা যায়।

ভতিচ্ছুদের পরীক্ষার হলে নিয়ে যাওয়া এমনকি চান্স পেলে ভর্তির অাদ্যপান্ত নিয়ে সবকিছুতেই সহায়তা পেয়ে থাকেন নবীনরা। ভর্তি হলে ঘটা করে নবীনবরণের আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, হল প্রশাসন, অনুষদ, রাজনৈতিক সংগঠন, সামাজিক সংগঠন ও জেলা সমিতি।
======================
লেখক : শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ
মুঠোফোন : +৮৮০১৭৪৪৪৩১০৪০
ইমেইল: