Wednesday, 26 September 2018

 

আনন্দ ভ্রমণ

আমি সারাফ নাওয়ার; জয়দেবপুর সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ি। এস.এস.সি পরীক্ষার জন্য স্কুল বন্ধ থাকায় নানুবাড়ি বেড়াতে এসেছি। নানুবাড়ি থেকে আমি আপুর বাসায় । আপুর নাম হাসমিন আপু। দিনটি ছিল ১৮ ই ফেব্রুয়ারী রবিবার, ২০১৮। এই দিনে আমরা বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমণ করেছিলাম।

খুব ভোর বেলায় ওঠে সূর্য ওঠার আগে আমি উঠেছিলাম। কিন্তু গাড়ি এসেছিল সকাল ৮:৩০ টায়। আমারা মোট ১৩ জন ছিলাম। আরিফ ভাইয়ের গাড়িতে উঠে আমরা অনেক মজা করলাম। প্রথমে আমরা সারদায়ে গিয়েছিলাম। তারপর আমরা পুলিশ একাডেমিতে গিয়েছিলাম যেখানে পুলিশদের ট্রেনিং দেওয়া হয়। তারপর আমরা ঊর্মী রেস্ট হাউসে গিয়েছিলাম। সেখান থেকে আমরা বাঘা মাজারে, মসজিদে।

আমরা দেখেছিলাম মসজিদের গায়ে যে কারুকাজগুলো খুব সুন্দর। তারপর আমরা বাঘা উৎসব পার্কে গিয়েছিলাম। ওখানে গিয়ে আমরা দুপুরে খাওয়া সেরে আমি হাড়ি ভাঙ্গা খেলায় অংশগ্রহণ করেছিলাম। কিন্তু আমি পারিনি তবে আমার মন খারাপ হয়নি। তারপর আমরা পুঠিয়া রাজবাড়ি উঠেছিলাম কী অপূর্ব রাজবাড়ি! কী অপূর্ব কারুকাজ! দেখেই মন ভোরে যায়। তারপর রওনা দিলাম বাসার দিকে। প্রায় সন্ধার দিকে আমরা আরিফ ভাইয়ের সাথে গাড়িতে উঠলাম। গাড়িতেই আমরা অনেক অপূর্ব দৃশ্য দেখতে দেখতে পেলাম। শুধু তাই নয়। আমরা তাহেরাপুর হাওয়া খানাও দেখলাম। দুই দীঘীর মাঝে এক রাস্তা। কী অপূর্ব দৃশ্য। এগুলো দেখতে দেখতে আমরা রাত্রি ৮:০০ টায় বাসায় ফিরলাম। আমার খুব মজা লেগেছে তাই হাসমিন আপু ও আরিফ ভাইয়াকে আমার পক্ষ থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ।