Wednesday, 18 July 2018

 

জাপানের কাগাওয়ায় বিজয়ের ৪৫ বছর পূর্তি এবং ইংরেজি নতুন বছর উদযাপন

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, জাপান প্রতিনিধি: “বাংলা, বাঙ্গালী এবং বাংলাদেশি”-প্রবাস জীবনের ব্যস্ত দিন শেষে খুঁজে ফিরে পাওয়া প্রিয় মা, মাটি আর মানুষের এক আশ্রয়স্থলের নাম। শত ব্যস্ততার মাঝেও লাল সবুজের পতাকা আর আমাদের শেকরের এবং নাড়ীর টানের কথা মনে করিয়ে দেওয়ার নাম। তাই প্রিয় মাতৃভূমির বিজয়ের ৪৫ বছর পূর্তিকে উদ্যাপন করতে এমনই এক আয়োজন ছিল গত ৩১ ডিসেম্বর জাপানের কাগাওয়ায়-একই সাথে বিজয় দিবসকে স্মরণ এবং ইংরেজি নতুন বছরকে উদযাপন।

কাগাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল হাউজে ঐদিন সন্ধ্যা ৬:০০টা থেকেই শুরু হয় বাঙ্গালীদের মিলন মেলা। এরপর কফি ব্রেক শেষে রাত ৮টায় আনুষ্ঠানিকভাবে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা। তৌফিকা ইসলাম এ্যানির উপস্থাপনায় শুরুতেই বাজল জাতীয় সংগীত। এরপর একে একে বক্তব্য দিলেন খেলাধুলা কমিটির সদস্য সচিব শফিকুল ইসলাম, মহিলাদের পক্ষে নবাগত কৃষ্ণা রানী এবং অনুষ্ঠান আয়োজকদের পক্ষে তিন প্রতিযোগিতার বিজয়ী তাজুল ইসলাম চৌধুরী তুহিন। আর সমাপনী বক্তব্য দিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভত কাগাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. মোস্তফা জামাল।

এরপর পুরষ্কার বিতরন করলেন ড. মোস্তফা জামাল এবং তার সহধর্মিনী। বিজয় দিবস বিভিন্ন ইভেন্টের মধ্যে ছিল ছেলেদের ব্যাডমিন্টন (একক ও দ্বৈত), টেবিল টেনিস এবং কার্ড  আর মেয়েদের ব্যাডমিন্টন, লুডু এবং কার্ড ইত্যাদি। এর মধ্যেই গত ২৫ ডিসেম্বর ছিল প্রীতি ক্রিকেট খেলার আয়োজনও। উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে গত ২১ ডিসেম্বর বুধবার কাগাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের জিমনেসিয়ামে (সন্ধ্যা ৭ টায়) বিজয় উৎসব ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্ভোধন হয়।

সবশেষে বাঙ্গালী ভুরি ভোজ এবং ইংরেজি নতুন বছরকে বরণ। দীর্ঘদিন পর এরকম একটি আয়োজন সবাইকে এক জায়গায় মিশিয়েছে আর খানিকটা হলেও দেশ থেকে দূরে থাকার একাকীত্বকে ঘুচিয়েছে। এ প্রাণ আমার বাংলাদেশের বিজয়ের এ আনন্দ টিকে থাকুক যুগ যুগ ধরে আর নতুন বছরে আমরা সবাই ভাল থাকি-এটাই ছিল সবার প্রত্যাশা।