Thursday, 16 August 2018

 

কেআইবি কৃষি পদক ২০১৭” এ ভুষিত হলেন কৃষিবিদ মো. আবু সায়েম

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:কৃষি উন্নয়নের জন্য স্বীকৃতি স্বরূপ কৃষি প্রকাশনা ও সম্প্রচার (ব্যক্তি) হিসেবে কৃষি তথ্য সার্ভিস রংপুরের আঞ্চলিক বেতার কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. আবু সায়েম-কে “কেআইবি (কৃষি) পদক ২০১৭” এ ভুষিত করা হয়েছে। ১৪ ফেব্রুয়ারি কেআইবি কমপ্লেক্স মিলনায়তনে মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এর হাত হতে তিনি এ পদক গ্রহণ করেন।

কৃষিবিদ মো. আবু সায়েম একজন দায়িত্বশীল সরকারি কর্মকর্তা। আঞ্চলিক বেতার কৃষি অফিসার হিসেবে তিনি বাংলাদেশ বেতার রংপুরে কৃষি ও উন্নয়নমূলক অনুষ্ঠান বিশেষজ্ঞ কথক/উপস্থাপক হিসেবে কৃষি বিষয়ক তথ্য প্রযুক্তি সংবলিত প্রচারণা কার্যক্রম কৃষকের দোরগোড়ায় পৌঁছানোর মাধ্যমে তিনি কৃষি উন্নয়নে অবদান রাখতে সদা সচেষ্ঠ রয়েছেন। জাতীয়/স্থানীয় দৈনিক পত্রিকা, কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন ম্যাগাজিন, বেতার ও টেলিভিশনে কৃষি বিষয়ক ফিচারও সংবাদ প্রচারে তিনি অগ্রণী ভূমিকা রাখছেন।

তিনি বাংলাদেশ বেতারে এ যাবৎ ২শ টির অধিক প্রচারণা অনুষ্ঠানে বিশেষজ্ঞ কথক হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সরবরাহের মাধ্যমে বাংলাদেশ টেলিভিশনের কৃষি বিষয়ক অনুষ্ঠান প্রচারে সহযোগিতা করেন। তিনি এ পর্যন্ত কৃষি বিষয়ক ১টি বই, ১টি লিফলেট ও ১১টি ফোল্ডার সম্পাদনা করেছেন। দেশে-বিদেশে বিভিন্ন জার্নালে তাঁর ৯টি বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। ই-মেইল ও সোস্যাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন আইসিটি উপকরণের মাধ্যমে কৃষি তথ্য প্রযুক্তি বিস্তার করেন। গ্রাম পর্যায়ে কৃষক সংগঠন কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ কেন্দ্রের মাধ্যমে ই-কৃষি সেবা প্রদানে উদ্বুদ্ধ করে থাকেন। কৃষি তথ্য সার্ভিসের কৃষি কল সেন্টার (১৬১২৩) এর দ্বিতীয় স্তরের বিশেষজ্ঞ সদস্য হিসেবে প্রশ্নের জবাব প্রদান করে থাকেন। এছাড়া রংপুর, দিনাজপুর, নীলফামারী ও কুড়িগ্রাম জেলার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার (ইউডিসি) এর উদ্যোক্তাদের দৈনন্দিন কৃষির ওপর প্রশিক্ষণ প্রদান ও নিয়মিত মোবাইলে কৃষি তথ্য সেবা দানে সহায়তা প্রদান করেন। তাঁর এ কর্মকান্ড কৃষকদের আধুনিক চাষাবাদে উদ্বুদ্ধ করছে এবং দেশের কৃষির অগ্রগতিতে অবদান রাখছে। এছাড়া তিনি পরপর তিন মেয়াদে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ রংপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

কৃষিবিদ মো. আবু সায়েম গ্রামীণ কৃষি উন্নয়নে আইসিটি ব্যবহারে বিশেষ দক্ষ। তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ হতে ২০০০ সালে প্রথম শ্রেণিতে বি.এসসি.এজি.(অনার্স) এবং ২০০৫ সালে এ গ্রেডে বায়োটেকনোলজিতে এমএস কোর্স পাশ করেন। এরপর ২০০৬ সালে ২৫তম বিসিএস (কৃষি) ক্যাডারে যোগদান করেন। ভারত সরকারের আইটেক ফেলোশীপে হায়দ্রাবাদের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব রুরাল ডেভেলপমেন্ট (এনআইআরডি) হতে আইসিটি ফর রুরাল ডেভেলপমেন্ট বিষয়ে তিনি কোর্স সম্পন্ন করেন। ভারত ছাড়াও চীন সরকারের আমন্ত্রণে বাংলাদেশের কৃষি ব্যবস্থাপনার ওপর সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি রংপুর জেলার কাউনিয়া উপজেলার হরিশ্বর গ্রামে। তাঁর মা একজন রত্নগর্ভা। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি তিন কন্যা সন্তানের জনক।